আমার উৎপলরে আইনা দাও’, ছেলে হারিয়ে নির্বাক বৃদ্ধা মা উল্লাপাড়ায় তার শেষকৃত্য সম্পন্ন

Share

শিক্ষার্থীর প্রহারে নিহত শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার গভীর রাতে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার লাহিড়ী মোহনপুর শশ্মানে তার শেষকৃত্য হয়। উৎপলের স্বজন ও গ্রামবাসী চোখের জ্বলে তাকে শেষ বিদায় জানিয়েছেন।

সোমবার রাত ১০টার দিকে উৎপলের মরদেহ তার এলংজানি গ্রামের বাড়িতে এসে পৌঁছালে সেখানে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। কান্নায় ভেঙে পড়েন তার বৃদ্ধা মা গীতা রানীসহ পরিবারের স্বজন ও প্রতিবেশীরা।
গভীর রাতে লাহিড়ী মোহনপুর শশ্মানে স্থানীয় বহু মানুষ তার দাহ কাজে অংশ নেন। এসময় অনেককে চোখের পানি ফেলতে দেখা যায়।
শোকের মাতম চলছে উৎপলের পরিবারে। ভারি হয়ে গেছে পরিবেশ। উৎপলের মা নির্বাক হয়ে পড়েছেন। মাঝে মাঝে অস্ফুট কণ্ঠে শুধু বলছেন, ‘তোমরা আমার উৎপলরে আইনা দাও। এইভাবে সে চইলা যাইতে পারে না’। দুইদিন ধরে কিছুই মুখে তোলেননি তিনি। শুধু মা গীতা রানী নন, এমন করুণ অবস্থা ওই পরিবারের সবারই।

উৎপলের স্ত্রী বিউটি সরকার, ভাই অসীম কুমার সরকার, তার স্ত্রী মলি রানী সরকার, ভাগ্নি দীপাসহ পরিবারের সবারই একই কথা, শিক্ষার্থীরা যদি এমন নিমর্মভাবে শিক্ষককে হত্যা করেন, তাহলে দেশে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর সম্পর্কের কী হবে? কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই শৃঙ্খলা থাকবে না। শিক্ষক-শিক্ষার্থীর চিরায়ত মধুর সম্পর্ক একেবারেই নষ্ট হয়ে যাবে।

উৎপলের পরিবারের স্বজনরা অবিলম্বে অভিযুক্ত আশরাফুল ইসলাম জিতু ও তার সহযোগীদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আবেদন জানিয়েছেন।

উৎপল উল্লাপাড়ার এলংজানী গ্রামের মৃত অজিত সরকারের ছেলে। তিনি ১০ বছর ধরে আশুলিয়ার চিত্রশাইল এলাকার হাজী ইউনুস আলী স্কুল ও কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক ছিলেন। প্রতিষ্ঠানটির আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভাপতি হিসেবে তিনি বিভিন্ন সময় শিক্ষার্থীদের শাসন ও বিচার করতেন।

গত শনিবার ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্রীদের ফুটবল খেলা হচ্ছিল। তখন মাঠের এক পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন উৎপল। এসময় স্কুলটির দশম শ্রেণির ছাত্র আশরাফুল ইসলাম জিতু ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্প দিয়ে উৎপলকে বেধড়ক পেটাতে শুরু করেন। পরে গুরুতর অবস্থায় তাকে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই সোমবার সকালে তার মৃত্যু হয়।

Leave A Reply