রাজনৈতিক দুই এজেন্ডার বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সরকারের সঙ্গে আলোচনা হতে পারে: সাইফুল হক

Share

নির্বাচনের পূর্বে সরকারের পদত্যাগ ও নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ তদারকি সরকার গঠণের লক্ষ্য নিয়ে আলোচনা হতে পারে বলে জানিয়েছেন বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক।

বুধবার আমাদের সময় ডটকমের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন। এর আগে সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, আগামী নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক করতে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনায় আওয়ামী লীগের আপত্তি নেই।

সাইফুল হক বলেন, আমাদের পুরো নির্বাচনকেন্দ্রিক যে সংকট; এই সংকট হলো রাজনৈতিক সংকট। সুতরাং সরকারকে বা সরকারে থাকা দলকে রাজনৈতিক উদ্যোগ নেওয়া দরকার। রাজনৈতিক উদ্যোগ নিয়ে, দলগুলোর সঙ্গে একটা বিশ্বাসযোগ্য আলোচনা করা প্রয়োজন। নির্বাচনকেন্দ্রিক গুরুত্বপূর্ণ স্টেকহোল্ডার যারা আছেন, তাদের সঙ্গেও আলোচনা করা যেতে পারে।

তিনি বলেন, এ আলোচনার প্রবলেম হচ্ছে, ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আমাদের যে করুণ অভিজ্ঞতা, তিনি যে অঙ্গীকার করেছিলেন, আসলে তাঁর সরকার সে অঙ্গীকার রাখতে পারেন নাই। ফলে পুরো নির্বাচনটা এক অর্থে ব্যর্থ হয়েছে। সুতরাং এবার সংলাপের বিষয় যদি হয়, আমাদের অবস্থান যেটা, সরকার নির্বাচনের আগে তারা কিভাবে পদত্যাগ করবেন। কিভাবে নির্বাচনকালীন একটি নিরপেক্ষ সরকার গঠিত হতে পারে এ সংক্রান্ত বিষয় আলোচনার প্রধান বিষয় হওয়া উচিত।

সাইফুল হক আরও বলেন, সরকার যদি আন্তরিক হয়, লোক দেখানো বা প্রচার-সর্বস্ব বিষয় না হয়ে যদি সত্যি সত্যি তাদের এরকম নিতিগত অবস্থান থাকে নিশ্চয়ই আলোচনা হতে পারে। এবারকার নির্বাচন যদি ব্যর্থ হয়, শুধু সরকারি দল নয় পুরো দেশের জন্য ভায়বহ বির্পযয় ডেকে আনবে বলে আমাদের আশঙ্কা। সেরকম একটা ঝুঁকি কোনো দেশপ্রেমিক দল বা জনগণ নিশ্চয়ই চায় না। বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক আরো বলেন, নিশ্চয়ই কেউ কোনো সংঘাত- সংঘর্ষ চাই না। আলোচনার মধ্য দিয়ে সরকারের পদত্যাগ ও নির্বাচনকালীন সরকারের বিষয়ে আলোচনা করে সংকট  থেকে উত্তরণ ঘটবে, এটা আমাদের আকাক্সক্ষা। সম্পাদনা: হাসান হাফিজ।

Leave A Reply