ট্রেনের টিকিট পেতে টুল!

Share

আরাম ও স্বাচ্ছন্দ্য ভ্রমণ করতে অনেকেরই পছন্দ ট্রেন। কিন্তু বর্তমান সময় ট্রেনের টিকিট যেন সোনার হরিণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। একদিকে টিকিট সংকট অন্যদিকে কালোবাজারি। একে যেন মরার উপর খাড়ার ঘা! ট্রেনের টিকিট যেন এক ভোগান্তির নাম।

রেলের টিকিট পেতে বিভিন্নজন বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করছেন। রংপুরের পীরগাছা রেলস্টেশনে টিকিট কাউন্টারের সামনে চেয়ার, টুল বসিয়ে সিরিয়াল নিচ্ছে ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকার যাত্রীরা। পবিত্র ঈদুল ফিতরের একদিন পর দেখা গেছে এ দৃশ্য!

বুধবার হঠাৎ করে এসব চেয়ার, টুল বসানো দেখে গোটা উপজেলায় বইছে সমালোচনার ঝড়। এমনকি সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে তাৎক্ষণিক শেয়ার হলে অনেকে নেতিবাচক মন্তব্য করছেন।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে দেওয়া হবে আগামী ৯ তারিখে টিকিট। এ খবর প্রকাশ হলে ভোর থেকে যাত্রীরা ভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে সারিবদ্ধভাবে চেয়ার ও টুল বসিয়েছে। আবার এসব চেয়ার ও টুলের ওপর সাদা কাগজে লেখা হয়েছে যাত্রীদের নাম।

এক কথায় বলা যায়, আগে টিকিট পেতে কাউন্টারের সামনে জায়গা দখল করে রেখেছে তারা।

টিকিট কিনতে আসা এক যাত্রী জানান, বুধবার থেকে টিকিট কাউন্টারের সামনে চেয়ার ও টুল বসানো ছিল। আমি রাত আড়াইটার দিকে এসেও টিকিট পাইনি। তাই সকালে এসে টুল বসিয়েছি।

আনিছুর রহমান নামের একজন বলেন, আপনি সাংবাদিক মানুষ! বিষয়টি আপনি একটু দেখেন। এমন করে চেয়ার টুল বসিয়ে টিকিট সংগ্রহ করা সিন্ডিকেট ছাড়া আর কিছু নয়।

এ বিষয়ে রেলস্টেশন মাস্টার আব্দুল হামিদ বলেন, আমিও বুধবার সকালে দেখলাম চেয়ার টুল বসানো। যাত্রীরা আগে টিকিট পেতে এসব চেয়ার, টুল বসিয়েছে আমার মনে হয়।

চেয়ার, টুল বসিয়ে টিকিট সংগ্রহ করার কোনো নিয়ম আছে কি? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ রকম নিয়ম নেই। এর আগে লালমনিরহাট স্টেশনে যাত্রীরা চেয়ার, টুল বসিয়েছিল কিন্তু ওইখানের প্রশাসন তা উঠিয়ে দিয়েছে। কিন্তু আমাদের এখানে কোনো প্রশাসন নেই। তাই আমরা কিছু করতে পারি না।

আরেক রেল কর্মকর্তা আমির উদ্দিন জানান, পীরগাছায় আমাদের রেলের টিকিট বরাদ্দ সীমিত। রংপুর এক্সপ্রেসের টিকিট ১৯টি। লালমনি এক্সপ্রেসের টিকিট ২৯টি। কিন্তু চাহিদা অনেক বেশি।

Leave A Reply