উত্তেজনার মধ্যেই সামরিক কুচকাওয়াজ শুরু করেছে উত্তর কোরিয়া

Share

উত্তর কোরিয়াকেন্দ্রিক সংবাদ পোর্টাল এনকে নিউজ অজ্ঞাত সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছে যে, ১২টি আলোকসজ্জিত উড়ন্ত বস্তু, সম্ভবত ড্রোন বা হেলিকপ্টার, পিয়ংইয়ংয়ের ওপরে আকাশে দেখা গেছে। এ ছাড়া আতশবাজির শব্দও পাওয়া গেছে।

অতীতের কুচকাওয়াজে, উত্তর কোরিয়া প্রায়ই তার প্রতিদ্বন্দ্বীদের ভয় দেখাতে এবং অভ্যন্তরীণ ঐক্যকে শক্তিশালী করার প্রয়াসে নতুন নির্মিত পারমাণবিক বোমা বহনে সক্ষম ক্ষেপণাস্ত্র এবং পদাতিক সেনাদের প্রদর্শন করেছে। কিম যুক্তরাষ্ট্রের বৈরিতা মোকাবিলায় সশস্ত্র বাহিনীকে শক্তিশালী করার প্রতিশ্রুতি তুলে ধরে বক্তৃতাও দিয়েছেন।

উত্তর কোরিয়াকে পারমাণবিক শক্তিধর হিসেবে গ্রহণ করতে এবং কঠোর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞাগুলো অপসারণ করতে যুক্তরাষ্ট্রকে বাধ্য করার লক্ষ্যে কিমের পরমাণু কৌশল পুনর্জীবিত করার মধ্যে এই কুচকাওয়াজের আয়োজন করা হয়। বিশ্লেষকেরা বলছেন, ইউক্রেনে রাশিয়ার যুদ্ধ নিয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ বিভক্ত থাকায় উত্তর কোরিয়া তার অস্ত্র কর্মসূচি এগিয়ে নিতে এই অনুকূল পরিবেশকে কাজে লাগাচ্ছে।

উত্তর কোরিয়ার নিরস্ত্রীকরণের শর্তে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন নিষেধাজ্ঞার সম্ভাব্য শিথিলকরণ নিয়ে মতবিরোধের কারণে ওয়াশিংটন ও পিয়ংইয়ংয়ের মধ্যে পারমাণবিক আলোচনা ২০১৯ সাল থেকে স্থবির হয়ে পড়েছে।

উত্তর কোরিয়া ২০১৭ সালের পর এ বছর একটি আন্তমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের প্রথম উৎক্ষেপণ পরীক্ষাসহ এ বছর ১৩ দফা অস্ত্র পরীক্ষা করেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশটি একটি গোয়েন্দা স্যাটেলাইটকে কক্ষপথে স্থাপন বা জাপানের ওপর দিয়ে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য নিষিদ্ধ দূরপাল্লার একটি রকেট উৎক্ষেপণও করতে পারে। উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম তাৎক্ষণিকভাবে কুচকাওয়াজের প্রতিবেদন প্রকাশ করেনি। সোমবারের আগে, সরকারি সংবাদপত্রগুলো কিমের প্রতি শক্তিশালী জনসমর্থনের আহ্বান জানিয়ে সম্পাদকীয় প্রকাশ করে।

উত্তর কোরিয়ার সাম্প্রতিক পরীক্ষিত অস্ত্রগুলো যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডের পাশাপাশি দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানে আঘাত হানতে সক্ষম।

Leave A Reply