মানবাধিকার পরিষদে রাশিয়ার সদস্যপদ স্থগিত, ভোটদানে বিরত বাংলাদেশ

Share

ইউক্রেনে হামলার জেরে রাশিয়াকে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে অপসারণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ((ইউএনজিএ) অধিবেশনে ভোটাভুটির ভিত্তিতে দেশটিকে অপসারণ করা হয়। এতে ভোটদানে বিরত ছিল বাংলাদেশ।

আলজাজিরার খবরে বলা হয়েছে, ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের আশপাশের অঞ্চলে রুশ সৈন্যরা বেসামরিক নাগরিকদের হত্যা করেছে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে শীর্ষস্থানীয় সংস্থাটি থেকে রাশিয়াকে অপসারণ করা হবে কি-না, এ নিয়ে ভোটাভুটি করেছিল (ইউএনজিএ)।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ৮টার দিকে জাতিসংঘের এ সংক্রান্ত অধিবেশন শুরু হয়। অধিবেশনে যুক্তরাষ্ট্র প্রবর্তিত এই রেজোলিউশনের পক্ষে ভোট পড়েছে ৯৩টি, যেখানে ২৪টি দেশ বিপক্ষে ভোট দিয়েছে এবং ৫৮টি সদস্য দেশ ভোটদানে বিরত থেকেছে।

রাশিয়াকে কাউন্সিল থেকে সরিয়ে দিতে ১৯৩ সদস্যের পরিষদের দুই-তৃতীয়াংশের ভোট প্রয়োজন ছিল।

জেনেভায় অবস্থিত কাউন্সিলটি মূলত প্রতীকী। তবে এটি মানবাধিকার লঙ্ঘনের তদন্তের অনুমোদন দিতে পারে। রাশিয়া ৪৭ সদস্যের এই কাউন্সিলে তিন বছরের মেয়াদের দ্বিতীয় বছরে পা দিয়েছিল। তবে সংস্থাটি রাশিয়াকে অপসারণের বিষয়ে এখনও মন্তব্য করেনি।

ইউক্রেনে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে গত সোমবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের কাছে সংস্থাটির মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে রাশিয়াকে অপসারণের দাবি জানিয়ে রেজোলিউশন উত্থাপন করে যুক্তরাষ্ট্র।

মার্কিন রাষ্ট্রদূত লিন্ডা থমাস-গ্রিনফিল্ড বলেন, মানবাধিকার কাউন্সিলে রাশিয়ার অংশগ্রহণ একটি প্রহসন। এবং এটি অন্যায়ও। তাই আমরা বিশ্বাস করি, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে তাদের অপসারণে ভোট দেওয়ার সময় এসেছে।

কিয়েভের পাশের শহর বুচায় রুশ সেনারা কয়েক ডজন বেসামরিক লোককে হত্যা করেছেন, ইউক্রেনের এই অভিযোগের ভিত্তিতে থমাস-গ্রিনফিল্ড রাশিয়ার অপসারণের জন্য আহ্বান জানান।

Leave A Reply