মন গললো রাশিয়ার, সাময়িক যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করলেন পুতিন

Share

অবশেষে মন গললো রাশিয়ার । ইউক্রেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ থামানো অনুরোধ করা হচ্ছিল বিগত কদিন ধরেই, এবার সেই প্রস্তাবই মেনে নিল রাশিয়া। সাধারণ নাগরিকদের উদ্ধারকার্যের জন্য সাময়িক যুদ্ধবিরতির ঘোষণা করা হল। ইউক্রেনে যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করল পুতিনের দেশ। জানা গিয়েছে, যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেনে আটকে পড়া সাধারণ নাগরিকদের নিজেদের দেশে নিরাপদে ফেরাতেই এই ঘোষণা। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় শনিবার যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করেছে যাতে কৌশলগত বন্দর শহর মারিউপোল সহ দুটি অবরুদ্ধ শহরের বাসিন্দারা অন্যত্র সরে যেতে পারেন।

আজ, ৫ মার্চ, মস্কোর সময় সকাল ১০ টা থেকে, রাশিয়ান পক্ষ যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করে এবং মারিউপোল এবং ভলনোভাখা থেকে বেসামরিক নাগরিকদের প্রস্থানের জন্য মানবিক করিডোর খুলে দেয়। রাশিয়ার সংবাদসংস্থা স্পুটনিকের তরফে জানানো হয়েছে, এদিন সকালে রাশিয়া সাময়িক যুদ্ধবিরতির সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে।

আপাতত সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার জন্য এই বিরতি ঘোষণা করা হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে কোনও হামলা চালাবে না রুশ সেনা। পাল্টা প্রত্যাঘাত করতে পারবে না ইউক্রেনও। মারিউপোলের মেয়র ভাদিম বয়চেঙ্কো শনিবার বলেছিলেন যে কয়েকদিনের “নির্মম” আক্রমণের পরে রাশিয়ান বাহিনী গোটা শহর অবরুদ্ধ করে রেখেছে । তারপরেই প্রেসিডেন্ট পুতিনের নতুন সিদ্ধান্তের কথা সবাই জানতে পারেন।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের ঘোষণা করেছিলেন রুশ প্রেসিডেন্ট। দশম দিনে এসে রাশিয়ার এই সিদ্ধান্ত নিয়ে কাটাছেঁড়া শুরু করেছে আন্তর্জাতিক মহল। তবে কি ইউরোপের একাধিক দেশে থেকে নিষাধাজ্ঞার চাপেই পিছু পটলেন পুতিন? এমনও মনে করছে আন্তর্জাতিক মহলের একাংশ। বিগত ১০ দিন ধরে রাশিয়া ইউক্রেনের উপরে সামরিক অভিযান শুরু করেছে। পুরোদমে রাশিয়ার সেই আক্রমণ প্রতিরোধের চেষ্টা চালাচ্ছে ইউক্রেন। এরইমাঝে গত সপ্তাহ থেকে দুইবার মুখোমুখি বৈঠকেও বসেছে দুই দেশ। প্রথম বৈঠক বিশেষ ফলপ্রসূ না হলেও, চলতি সপ্তাহেই বেলারুশের সীমান্তে বৈঠকে বসে দুই দেশ।

সেখানেই দেশের সাধারণ মানুষদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তার স্বার্থে মানবিক করিডর তৈরির প্রস্তাব দেওয়া হয় এবং দুই দেশই সেই প্রস্তাবে রাজি হয়। ওই দিন মানবিক করিডর নিয়ে বিশেষ কোনও সিদ্ধান্ত গ্রহণ না করা হলেও, এদিন সকালে জানানো হয় সাময়িক যুদ্ধ বিরতির ঘোষণা করা হচ্ছে।

সূত্র: economictimes.indiatimes.com

Leave A Reply