জোট সরকার গঠনে রাজি হলেন জার্মান সোশ্যাল ডেমোক্র্যাট নেতা ওলাফ শোলজ

জার্মান সোশ্যাল ডেমোক্র্যাট নেতা ওলাফ শোলজ দেশটির নতুন চ্যান্সেলর হওয়ার জন্য প্রস্তুত। বুধবার তিনি ঘোষণা করেন যে, পরিবেশবাদী গ্রীনস পার্টি এবং ব্যবসা বান্ধব ফ্রি ডেমোক্র্যাটদের সাথে জোট সরকার গঠনের জন্য তাঁর দল একটি চুক্তিতে পৌঁছেছে, আর এর মধ্যে দিয়ে চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মার্কেলের ১৬ বছরের শাসনের অবসান ঘটতে যাচ্ছে।

জার্মানির প্রধান রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের মধ্যে মধ্য-বাম নেতা শোলজ ২০২৩ সাল থেকে শুরু হতে যাওয়া কঠোর ঋণের সীমাতে ফিরে আসার আগে, সবুজ প্রযুক্তিতে এবং দেশের অর্থনীতিতে সাধারণের বিনিয়োগকে এগিয়ে নিতে, অন্যান্য দলের সাথে ১৭৭-পৃষ্ঠার একটি চুক্তি প্রণয়ন করেন।

২০১৮ সাল থেকে মার্কেল সরকারের অর্থমন্ত্রী এবং ভাইস চ্যান্সেলর পদে থাকা শোলজ বলেছেন, তিনি আশা করছেন, তিনটি দলের সদস্যরা আগামী ১০ দিনের মধ্যে জোট সরকার গঠনে সম্মত হবেন।

বার্লিনে ফ্রি ডেমোক্র্যাটস অ্যান্ড গ্রীনস পার্টির নেতাদের পাশে নিয়ে, এক সংবাদ সম্মেলনে শোলজ বলেন, “আমরা আরও অগ্রগতি করার দুঃসাহস করতে চাই”। “আমরা জার্মানিকে এগিয়ে রাখতে, ব্যাপকভাবে বিনিয়োগ করব”।

বিংশ শতাব্দীতে দুটি বিশ্বযুদ্ধে জার্মানির পরাজয়ের পর, দেশটির দীর্ঘ ঐতিহ্যকে অব্যাহত রেখে, শোলজ তাঁর পররাষ্ট্র নীতিতে একটি সার্বভৌম ইউরোপ, ফ্রান্সের সাথে বন্ধুত্ব এবং যুক্তরাষ্ট্রের সাথে অংশীদারিত্বের উপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

গত ২৬শে সেপ্টেম্বর দেশের জাতীয় নির্বাচনে সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটরা স্বল্প ভোটে জয়ী হওয়ার পর থেকে তিনটি দল একত্রে একটি চুক্তিতে পৌঁছার ব্যাপারে সলা-পরামর্শ করছে। ২০০৫ সাল থেকে জার্মানিকে যিনি নেতৃত্ব দিয়েছেন সেই মার্কেল চ্যান্সেলর হিসাবে পঞ্চম মেয়াদের জন্য আর নির্বাচনে দাঁড়াতে চাননি।

এই তিনটি সম্ভাব্য শাসক দল বলেছে যে, তারা আশা করছে আগামী ৬ই ডিসেম্বর থেকে শুরু হওয়া সপ্তাহে সংসদ, শোলজকে চ্যান্সেলর হিসেবে নির্বাচিত করবে। তবে প্রথমে তাদের চুক্তির জন্য গ্রীনস পার্টির প্রায় ১২৫,০০০ সদস্যের পক্ষ থেকে ব্যালটের মাধ্যমে অনুমোদন এবং অন্য দুটি দলের কনভেনশন থেকে অনুমোদন প্রয়োজন।

ফ্রী ডেমোক্র্যাটদের পীড়াপীড়িতে, তিন অংশীদার এক সুরে বলেছে যে, তারা কর বাড়াবে না, বা চলমান ঋণের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা শিথিল করবে না।