ঈদকে সামনে রেখে যানজটের নগরী ঢাকা, চরম ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ

বুধবার সকাল থেকে রাজধানীর মার্কেট-শপিংমলগুলোয় ছিলো মানুষের উপচে পড়া ভীড়। দুপুর ২টার পর থেকে গাড়ি আর মানুষের ভীড়ে স্থবির হয়ে যায় পুরো ঢাকা শহর। এলিফ্যান্ট রোড, নিউমার্কেট আর গাউছিয়া মার্কেটে দুপুরের পর ক্রেতারা ঢুকতে পারছিলেন না। ক্রেতা ও বিক্রেতারা ছিলো প্রচন্ড খুশি। গত ঈদে বিক্রির চেয়ে এবার বিক্রি অনেক বেশি।

সকালে অফিসগামী একাধিক যাত্রী জানান, সকাল থেকেই যানজট। গাড়িতে উঠতে পারলেও ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থাকতে হচ্ছে। দুপুরের পর যানজটের কারণে অনেকগুলো রাস্তা বন্ধ। গাড়ি আর মানুষের ভীড়ে ট্রাফিক পুলিশ ছিলো অসহায়।

দোকান মালিক সমিতির একাধিক নেতা জানান, ‘নো মাস্ক, নো সার্ভিস’ লেখা থাকলেও কোথাও স্বাস্থ্য বিধি মানছে না। স্বাস্থ্যবিধি ও প্রশাসনিক নানা শর্তে দোকানপাট ও মার্কেট খোলার পর সেখানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়ে। ক্রেতারাও বেপরোয়া।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, শপিংমল ও মার্কেটে স্বাস্থ্যবিধি মানতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। দোকান মালিক সমিতির নেতাদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছি। মানুষকে বোঝানো চেষ্টা করেছি।

পল্টন মোড়, গুলিস্তান, সায়েদাবাদ, শনির আখড়া, সাইনবোর্ড, মদনপুর, আসাদগেট, কল্যাণপুর, টেকনিক্যালের মোড়, গাবতলী, আমিন বাজার এলাকায় ছিলো লোকে লোকারণ্য। এই এলাকাগুলোতে কার্ভার্ড ভ্যান, মাইক্রোবাস, প্রাইভেট কার আর মটরসাইকেল ছিলো চোখে পড়ার মতো।