ভবিষ্যতের বিমানযাত্রায় আসছে পরিবর্তন

করোনাভাইরাস সবকিছুতে হেনেছে আঘাত। অর্থনীতি থেকে শুরু করে সবকিছুকে করেছে ভঙ্গুর। আকাশপথ থেকে নৌপথ সব পথের যাত্রায় দিয়েছে বাধা। যার জন্যে ভবিষ্যতে বিমানযাত্রায় আসছে আমুল পরিবর্তন। কীভাবে বিমানের যাত্রাকে ঢেলে সাজানো যায় তা নিয়ে এরইমধ্যে কাজও শুরু করেছে বিমান সংশ্লিষ্টরা। এমনকি ইন্টারন্যাশনাল সিভিল অ্যাভিয়েশন অর্গানাইজেশন (আইকাও) ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বিমান পরিচালনায় এরইমধ্যে একটি গাইডলাইনও দিয়েছে বিমান পরিচালনাকারী সংস্থাগুলোকে।

বিমান সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে— নতুন নিয়মে ফ্লাইট এন্টারটেনমেন্ট, ককপিট ও কেবিন ক্রুর পাশাপাশি যাত্রীদের ড্রেস কোড তথা আচরণবিধি পাল্টে যাবে। প্রতিটি উড়োজাহাজের এক-তৃতীয়াংশ আসন খুলে ফেলে যাত্রীদের ন্যূনতম ২ মিটার দূরত্ব তৈরি করা হবে। ক্রু ও যাত্রীদের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক হবে। হবে না ঘন ঘন খাবার সরবরাহ। বাংলাদেশসহ বিশ্বের শীর্ষ স্থানীয় এয়ারলাইন্সগুলোকে নতুন নিয়মেই চালাতে হবে ভবিষ্যতে ফ্লাইট।

শুধু তাই নয়, বাধ্যতামূলকভাবে ফেস মাস্ক ও সার্জিকাল গ্লাভস ব্যবহার, সেলফ চেক ইন, সেলফ ব্যাগ ড্রপ অব, ইমিউনিটি পাসপোর্ট, ব্লাড টেস্ট, স্যানিটেশন ডিসইনফেক্ট টানেলে প্রবেশ করতে হতে পারে যাত্রীসহ বিমানের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের। এমনকি পাসপোর্ট যাচাই-বাছাইয়ের প্রক্রিয়াতেও আসবে পরিবর্তন। এরপর নিজের সুস্থতার প্রমাণ দিতে হবে। বিমানবন্দরের ভেতরে ঢোকার আগেই শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা ও লাগেজ স্যানিটাইজ করাতে হবে। সব শেষে যেতে হবে আল্ট্রাভায়োলেট ডিসইনফেকশনের মধ্যদিয়ে।