বায়ুদূষণে বিশ্বে প্রথম ঢাকা, করোনাভাইরাসকে ভয়ঙ্কর করার আশঙ্কা

বিশ্বের দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় আবারও প্রথম অবস্থানে এসেছে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা। আজ সকাল ৮টা ২১ মিনিটে একিউআই (এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স) এ ঢাকার গড় স্কোর ছিল ২২৭ যার অর্থ ঢাকার বাতাসের মান খুবই অস্বাস্থ্যকর পর্যায়ে রয়েছে। এমন অবস্থায় স্বাস্থ্য সতর্কতাসহ জরুরি অবস্থা বিবেচনা করা যেতে পারে।

চীনের রাজধানী বেইজিং এবং আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল যথাক্রমে ১৭০ ও ১৫৭ একিউআই স্কোর নিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে।

বারিধারা এবং গুলশানের মতো ঢাকার অভিজাত আবাসিক এলাকার একিউআই স্কোর যথাক্রমে ৩২২ ও ২৪২ যা সেখানকার বাতাসের মানকে খুবই অস্বাস্থ্যকর বলে নির্দেশ করছে।

গতকালই বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল, বাংলাদেশের উচ্চ মাত্রার বায়ু দূষণ করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়িয়ে তোলার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে পারে।
বায়ু দূষণ নিয়ে গবেষণা করা আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অন এনার্জি অ্যান্ড ক্লিনএয়ারের (সিআরইএ) এক সাম্প্রতিক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করে এমন আশঙ্কার কথা জানায় বাপা।
সিআরইএ-র ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলমান বায়ুদূষণের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশে ইতোমধ্যেই হাজার হাজার মানুষ ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, ফুসফুসের ক্যানসারসহ নানা ধরনের শারীরিক অক্ষমতায় ভুগছে বা কেমোথেরাপির মতো চিকিৎসা নিচ্ছে।

সেখানে আরও বলা হয়, বিশ্বের বেশ কয়েকটি গবেষণায় বায়ু দূষণ ও উচ্চ রক্তচাপ বা ফুসফুসে প্রদাহের মতো দীর্ঘস্থায়ী (ক্রনিক) রোগের সম্পর্ক মিলেছে। একই সঙ্গে দেখা গেছে, ইতোমধ্যে ক্রনিক রোগে আক্রান্তরা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে সহজে সুস্থ হচ্ছেন না বা তাদের মৃত্যুঝুঁকি বেড়ে যাচ্ছে। ফলে বায়ুদূষণ করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যাকে বাড়িয়ে তুলছে এবং স্বাস্থ্যসেবা খাতকে চরম চাপের মধ্যে ফেলে দিচ্ছে।

এদিকে গ্লোবাল বার্ডেন অব ডিজিজ স্টাডি ২০১৭-এর তথ্য অনুসারে, বায়ুদূষণ বাংলাদেশে ১১ শতাংশ ডায়াবেটিস, ১৬ শতাংশ ফুসফুসের ক্যানসার, ১৫ শতাংশ দীর্ঘস্থায়ী ফুসফুসের রোগ, ১০ শতাংশ হৃদরোগ এবং ৬ শতাংশ স্ট্রোকের জন্য দায়ী। ।