ভাসমান রোহিঙ্গাদের উদ্ধারের দাবি :মিয়ানমারের সব বাহিনীকে শর্তহীন অস্ত্রবিরতির আহ্বান ইইউয়ের

মিয়ানমারের সব বাহিনীকে অবিলম্বে শর্তহীন অস্ত্রবিরতির আহ্বান জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। একই সঙ্গে সবার অংশগ্রহণমুলক একটি শান্তি প্রক্রিয়ার প্রতি প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করার আহ্বান জানানো হয়েছে। এছাড়া সাগরে ভাসমান রোহিঙ্গা শরণার্থীদের অনুসন্ধান ও উদ্ধার অভিযান চালাতে এ অঞ্চলের দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। গত ১৬ই এপ্রিল একটি বোটের ৪০০ রোহিঙ্গাকে নিরাপদে নেমে আসতে এবং তাদের সহায়তা দিয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের এই উদারতার উদাহরণ এ অঞ্চলের অন্য দেশগুলো অনুসরণ করবে বলে আশা করা হয়। ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন এক্সটারনাল সার্ভিস একশনের হাই রিপ্রেজেনটেটিভ জোসেপ বোরেল এবং কমিশনার জানেজ লেনারসিসের দেয়া এক বিবৃতিতে এ কথা বলা হয়েছে। ব্রাসেলস থেকে দেয়া ওই বিবৃতিতে বলা হয়, ভয়ঙ্কর অমানবিক অবস্থায় নারী ও শিশুসহ কয়েক শত রোহিঙ্গা শরণার্থী সমুদ্রের ভিতর ভাসমান অবস্থায় আছেন। তাদেরকে বঙ্গোপসাগর এবং আন্দামান সাগরে মধ্যে ঠেলে দেয়া হচ্ছে।
এ অবস্থায় ওইসব মানুষের নিরাপদে অবতরণের জন্য অনুসন্ধান ও উদ্ধার অভিযান চালাতে এ অঞ্চলের সরকারগুলোর প্রতি আহ্বান জানায় ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন। একই সঙ্গে তাদের নিরাপদ অবতরণের বিষয়ে সমাধানে আসার পথ খুঁজে বের করার আহ্বান জানায়। এতে বলা হয়, ১৬ই এপ্রিল ৪০০ রোহিঙ্গাভর্তি একটি বোটকে নোঙর করতে এবং তাদেরকে সহায়তা দিয়েছে বাংলাদেশ। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ তাদের অব্যাহত উদারতা ও মানবিকতা প্রদর্শন করেছে। এ অঞ্চলের অন্য দেশগুলোর এটাকে উদাহরণ হিসেবে নিয়ে অনুসরণ করা উচিত বলে আমরা আশা করি।
ওই বিবৃতিতে আরো বলা হয়, মিয়ানমারের সব বাহিনীর প্রতি অবিলম্বে ও জরুরিভিত্তিতে শর্তহীন অস্ত্রবিরতি বাস্তবায়ন করতে আহ্বান জানায় ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন। একই সঙ্গে সবাইকে নিয়ে একটি শান্তি প্রক্রিয়ায় অগ্রসর হতে আহ্বান জানায়। এটা করা হলে রোহিঙ্গাদের দুর্ভোগে আসল কারণ চিহ্নিত করা সহজ হবে। বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ মানবিক ও উন্নযনে গুরুত্বপূর্ণ দাতা ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন। একই সঙ্গে এ অঞ্চলে আরো সমর্থন দিতে প্রস্তুত। বিবৃতিতে বলা হয়, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের তাদের আদি বাসস্থানে নিরাপদে, টেকসইভাবে, মর্যাদার সঙ্গে এবং স্বেচ্ছায় ফিরে যাওয়ার অব্যাহত অধিকারের প্রতি অব্যাহতভাবে পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি আমরা। পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে যে অপরাধ সংঘটিত হয়েছে তার পূর্ণাঙ্গ জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার আহ্বান জানাই।