কোভিড-১৯ : তথ্য প্রযুক্তি ক্ষাতে বর্তমান ক্ষতি ১২শ কোটি, তিন মাসে দাঁড়াবে ৩ হাজার কোটিতে

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটির প্রথম মাসেই বড় ধাক্কা খেয়েছে দেশের উদীয়মান তথ্যপ্রযুক্তি খাত। শুধুমাত্র হার্ডওয়্যার বিক্রিই বন্ধ হয়েছে ১২০০ কোটি টাকার।

ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশনের মতে, এ পরিস্থিতি যদি তিনমাস চলমান থাকে তাহলে এ খাতে ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা। এ অবস্থায় সঙ্কট উত্তরণে সরকারের কাছে প্রাথমিকভাবে প্রায় দুই হাজার কোটি টাকার অনুদান চেয়েছে দেশের সবগুলো তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবসায়ীদের সংগঠন।
রাইড শেয়ারিং অ্যাপ-পাঠাওয়ের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হোসাইন এম. ইলিয়াস বলেন, এই মুহুর্তে ৩ লাখ ড্রাইভার রয়েছেন। রাইডার পার্টনার রয়েছেন। ৫ হাজার রেস্টুরেন্ট রয়েছে এগুলো সব এখন বন্ধ। ২৫ হাজার ই কমার্স ব্যবসায়ী আছে তাদের সবারই কিন্তু বড় ধরনের ক্ষতি হচ্ছে।
যে গতিতে তথ্য প্রযুক্তিক্ষাতের প্রতিষ্ঠানগুলো এগোচ্ছে, এটি তিন মাস চলতে থাকলে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে দেশের উদীয়মান খাতটি। যা মোকাবেলায় সরকারের প্রণোদনা প্রয়োজন বলে মনে করেন ব্যবসায়ীরা।

বাক্য এর সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন বলেন, আমাদের যেসব কম্পানি আছে তারা মাত্র কার্যক্রম শুরু করেছে। এগুলো আসে স্টার্টআপ কোম্পানি। এরা লোন নিয়ে কোম্পানি চালাতে পারবে না। এদের সুদমুক্ত প্রণোদনা দিতে হবে।

তিনি বলেন, চারটি সংগঠন মিলে সরকারের কাছে ১৯৩০ কোটি টাকা চাওয়া হয়েছে। এই টাকা হলে আমাদের কোম্পানি ও লোকগুলো টিকে যাবে। কারো চাকরি যাবে না। এরসঙ্গে দুই পার্সেন্টসুদে লোন চাওয়া হয়েছে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলোক জানান, খাত সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে শিগগিরই অনিশ্চিত আগামীর পথচলার কৌশলপত্র তৈরি করতে যাচ্ছে সরকার। আইসিটি সংশ্লিষ্ট খাতগুলোকে চলমান পরিস্থিতিতে সৃষ্ট নতুন উপায়গুলো নিয়ে ভাবার পরামর্শ সরকারের।