না ফেরার দেশে করোনা আক্রান্ত ডা.মইন,পরিবারের সব দায়িত্ব সরকার নেবে’

বুধবার সকাল পৌনে সাতটায় রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নালিল্লাহি রাজিউন)। এ খবর নিশ্চিত করে হাসপাতালটির উপপরিচালক লে. কর্নেল এবিএম বেলায়েত হোসেন বলেন, গত তিনদিন ধরে তিনি ভেন্টিলেশনে ছিলেন। রেসপিরেটরি ফেইলিওরের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। জাগরণ আনলাইন

সিলেটের সিভিল সার্জন প্রেমানন্দ মন্ডল বলেন, তিনি আগে থেকেই ভেন্টিলেটরে ছিলেন। সংক্রমণ তার হার্টে ছড়িয়ে পড়েছিল। কাল রাত থেকে তার শরীর বেশি খারাপ হয়। পরে তার মৃত্যু হয়। সংক্রমণ বিধি মেনে ঢাকাতেই তার দাফন হবে। বিবিসি
বিশ^ব্যাপী ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরুর পর থেকেই বিভিন্ন ইস্যুতে আলোচনা ও সমালোচনায় রয়েছেন চিকিৎসকরা। চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রসঙ্গে যখন শোনা যাচ্ছে নেতিবাচক মন্তব্য। ঠিক তখনই কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত রোগিদের সেবা দিতে গিয়ে নিজের প্রাণ নিবেদিত করলেন চিকিৎসক ডা. মঈন উদ্দিন। জাগরণ আনলাইন
করোনা আক্রান্তদের জীবন রক্ষার এই যুদ্ধে সিলেটের প্রথম শহীদ ফ্রন্টলাইন যোদ্ধা ডা. মঈন উদ্দিন। জীবন বাঁচাতে গিয়ে জীবন বিলিয়ে দিয়ে জানিয়ে গেলেন, যে যাই বলুক মানবতাবাদি যোদ্ধারা কাপুরুষ নন। দেশ পারবে তো এই শহীদ মানবতাবাদি যোদ্ধার ত্যাগের যথার্থ মূল্যায়ন করতে। সিলেটের ইবনে সিনা হাসপাতালে নিয়মিত রোগী দেখতেন মেডিসিন ও হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ এই চিকিৎসক। জাগরণ আনলাইন
৫ এপ্রিল ডা. মইনের করোনা আক্রান্তের রিপোর্ট পজেটিভ আসে। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ৮ এপ্রিল ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। দু’দিন আগে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। মঙ্গলবার অবস্থার একটু উন্নতি হয়েছিল বলেও একাধিক সূত্রে জানা যায়। তবে বুধবার ভোরে তিনি মারা যান। বাংলা ট্রিবিউন

ডা. মঈনের বাড়ি নগরীর হাউজিং এস্টেট এলাকায়। মূল বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতকে। তার মৃত্যুতে সিলেটে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে দেশে এই প্রথম কোনো চিকিৎসকের মৃত্যু হলো। সারাবাংলা

এদিকে, তার আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় সংস্পর্শে থাকা চিকিৎসকসহ ১৬ জনের করোনা পরীক্ষা করা হয়। পরে তাদের রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।
নভেল করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দিনের পরিবারের সব দায়িত্ব সরকার নেবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
বুধবার (১৫ এপ্রিল) কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের লাইভ বুলেটিনে প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ এ তথ্য জানান।

ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী ডা. মঈন উদ্দিনের মৃত্যুতে গভীর শোক এবং তার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী একইসঙ্গে আশ্বস্ত করেছেন, তার পরিবারের সব দায়দায়িত্ব সরকার নেবে।
বিজ্ঞাপন
মহাপরিচালক জানান, সরকারের পক্ষ থেকে করোনা চিকিৎসায় নিয়োজিতদের যে বিমা ও অন্যান্য সুবিধা ঘোষণা করা হয়েছে, ডা. মঈনের পরিবার যেন দ্রুত তা পেতে পারেন, তার ব্যবস্থা করতেও প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন।

ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী সব চিকিৎসক, নার্স ও অন্য যারা স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন, তাদের বিষয়ে বলেছেন— সরকার সবসময় তাদের পাশে আছে।