দৈনিক সংগ্রাম কার্যালয়ে হামলার তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন ও রাজনৈতিক দলের

দৈনিক সংগ্রাম কার্যালয়ে প্রকাশ্যে বর্বর হামলা ও ভাঙচুর তান্ডবের তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানিয়েছে দেশের বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন, রাজনৈতিক দল। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর মগবাজারে দেশের প্রাচীনতম পত্রিকা দৈনিক সংগ্রাম কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করেছে ‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’ নামের একটি সংগঠনের নেতাকর্মীরা। এসময় পত্রিকার কম্পিউটারসহ প্রকাশনার সমস্ত যন্ত্রাংশ অচল করে দেয়। এতে প্রায় দেড় কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।
হামলাকারীরা প্রায় পৌনে এক ঘণ্টা ধরে পত্রিকাটির অফিসের বার্তাকক্ষসহ বিভিন্ন কক্ষে ব্যাপক ভাংচুর করে। তান্ডব চলাকালে সংবাদকর্মীরা কার্যালয়ের ভেতরে অসহায়ের মতো অবস্থান করেন। তারা পত্রিকাটির সম্পাদকের কক্ষ, বার্তাকক্ষ, চীফ রিপোর্টারের কক্ষ, সম্পাদনাসহকারী, সহ-সম্পাদকের কক্ষসহ প্রতিটি কক্ষে তান্ডব চালায়। ভাংচুরের পর পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক প্রবীণ সাংবাদিক আবুল আসাদকে জোরপূর্বক অফিস থেকে ধরে বাইরে নিয়ে যায় হামলাকারীরা। পরে পুলিশ তাকে থানা হেফাজতে নিয়ে যায়।
এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গতকাল শনিবার দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকা অফিস পরিদর্শন করেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজে এবং ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন-ডিইউজে’র সাবেক ও বর্তমান কমিটির সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ। বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজে সভাপতি ও দৈনিক সংগ্রামের চীফ রিপোর্টার রুহুল আমিন গাজীর নেতৃত্বে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ পত্রিকার অফিসে হামলা ভাঙচুরে ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন কক্ষ ঘুরে ঘুরে দেখেন এবং সংবাদকর্মীরা এইসবের ছবি তোলেন ও ভিডিও করেন।
পরিদর্শকালে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজে’র মহাসচিব এম আব্দুল্লাহ, সাংবাদিক নেতা নূরুল আমীন রোকন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন-ডিইউজে সভাপতি কাদের গণি চৌধুরী, সাথে ছিলেন ডিইউজে’র সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, সহ-সভাপতি শাহীন হাসনাত, সহ সভাপতি বাছির জামাল, সাবেক সহ সভাপতি মোদাব্বের হোসেন, কবি আব্দুল হাই শিকদার, কবি মতিউর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক এরফানুল হক নাহিদ, ডিইউজে’র জনকল্যান সম্পাদক খন্দকার আলমগীর হোসেন, সদস্য সৈয়দ আলী আসফার, সদস্য ডিএম আমিরুল ইসলাম অমর, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদ, ডিআরইউ’র সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল বারীসহ অন্যান্য সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপা’র: জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপা’র প্রতিনিধি দল দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকা অফিস পরিদর্শন করেন এবং পত্রিকা কার্যালয়ে হামলা, ভাঙচুর, তছনছের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান। তারা আশঙ্কা করেন এই হামলার মাধ্যমে দেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, বাক-স্বাধীনতার পথ আরও সংকুচিত হবে।
পরিদর্শনকালে দৈনিক সংগ্রাম কার্যালয়ে হামলা, ভাঙচুর, তছনছের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ। একই সাথে পত্রিকাটির বয়োজ্যেষ্ঠ সম্পাদক, বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী আবুল আসাদকে গ্রেফতার করে পুলিশ রিমান্ডের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। সাংবাদিক নেতারা অবিলম্বে হামলাকারীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং সম্পাদককে সসম্মানে মুক্তি দেয়ার দাবি জানান।
সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ বলেন, একটি সংবাদপত্র অফিসে ঢুকে কম্পিউটার, আসবাবপত্র, দরজা-জানালাসহ সব কিছু তছনছ করা ফ্যাসিবাদী আক্রমণ ছাড়া কিছুই নয়। কোনো সংবাদপত্রে প্রকাশিত সংবাদে কেউ সংক্ষুব্ধ হলে তার প্রতিবাদ জানানো এমনকি আইনগত ব্যবস্থা নেয়ারও অধিকার রয়েছে। কিন্তু তা না করে পেশিশক্তির মহড়া কোনো সভ্য সমাজে গ্রহণযোগ্য নয়। তারা বলেন, যে সংবাদটি নিয়ে আপত্তি করা হয়েছে গত ৫ বছর ধরে সংবাদটি এভাবেই প্রকাশিত হয়েছে। তখন কেউ আপত্তি করেননি।
সাংবাদিক নেতারা বলেন, যারা হামলা করেছে তারা ঘোষণা দিয়ে পুলিশের উপস্থিতিতে করেছে। এতে ধারণা করা অমূলক হবে না যে সরকারের ছত্রছায়ায় সিদ্ধান্ত নিয়েই এই বর্বরোচিত হামলা করা হয়েছে। এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনা গোটা সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা ও নিরাপত্তার জন্য হুমকি। তা ছাড়া কোনো মামলা ও ওয়ারেন্ট ছাড়াই একজন প্রবীণ সম্পাদককে পুলিশ তার অফিস থেকে যেভাবে তুলে নিয়ে গেছে, তাতে গোটা সাংবাদিক সমাজ ও বিবেকবান মানুষ স্তম্ভিত।