নওয়াজকে দেখে হতভম্ব ইমরান

সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের কড়া সমালোচনা করলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বলেছেন, যে নওয়াজ যেকোনো সময় মারা যেতে পারেন বলে বলছিলেন চিকিৎসকরা, তিনি হঠাৎ লন্ডনগামী বিমান দেখে পুরো ফিট বা সুস্থ হয়ে গেছেন। নওয়াজ শরীফ চিকিৎসার জন্য মঙ্গলবার পাকিস্তান ছাড়েন। এ নিয়ে মন্তব্যে শুক্রবার ওই কথা বলেছেন ইমরান। তিনি বলেছেন, চিকিৎসকরা বলছিলেন নওয়াজকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেয়া না হলে তিনি যেকোনো সময় মারা যেতে পারেন। কিন্তু দৃশ্যত নওয়াজ যখন লন্ডনগামী এয়ার অ্যাম্বুলেন্স দেখলেন দৃশ্যত তখন তিনি যেন সুস্থ হয়ে গেলেন। উল্লেখ্য, চার সপ্তাহের জন্য নওয়াজকে বিদেশ সফর অনুমোদন করেছে লাহোর হাইকোর্ট। এরপরই তিনি বিমানে পা রাখেন।
এ খবর দিয়েছে ভারতের সরকারি বার্তা সংস্থা পিটিআই।

এ নিয়ে পাঞ্জাবের মিয়াওয়ালি জেলায় এক সমাবেশে বক্তব্য রাখছিলেন ইমরান খান। তিনি বলেন, নওয়াজ শরীফ যখন এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে একা একাই উঠে গেলেন তা দেখে আমি হতভম্ব হয়ে গেলাম। তার মেডিকেল রিপোর্টে বলা হয়েছে, তাকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে না নিলে যেকোনো সময় মারা যেতে পারেন। পাকিস্তানের চিকিৎসায় তিনি ভাল হবেন না। কিন্তু বিমানের দিকে তাকিয়ে থাকা নওয়াজকে দেখে মনে হয়েছে সহসাই তার স্বাস্থ্যের উন্নতি হয়েছে। আমি বিস্মিত এ দৃশ্য দেখে। ইমরান খান কিছুটা তিরস্কারের সুরে বলেন, এটা এ জন্য হতে পারে যে, বিলাসবহুল বিমান দেখে অথবা লন্ডনের বাতাসের ঘ্রাণ পেয়ে তিনি সুস্থ হয়ে উঠেছেন। আসলে এটা ছিল তার একটি কৌশল। এ বিষয়ে তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। তাকে যেমন দেখেছি তাতে এ বিষয়ে তদন্ত হওয়ার দরকার আছে। বলা হয়েছে তিনি বহুবিধ জটিল রোগে আক্রান্ত। কিন্তু নওয়াজ শরীফ একা একাই বিমানের সিঁড়ি বেয়ে তাতে আরোহন করেছেন। হায় আল্লাহ! তুমি কতই না মহান!

মঙ্গলবার নওয়াজ শরীফকে বহনকারী এয়ার অ্যাম্বুলেন্স লন্ডনের হিথরো বিমানবন্দরের উদ্দেশে পাকিস্তান ত্যাগ করে। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন ভাই শাহবাজ শরীফ ও ব্যক্তিগত চিকিৎসক আদনান খান। লন্ডনে নওয়াজকে নিয়ে যাওয়া হয় তার দুই ছেলে হাসান ও হোসেন নওয়াজ ও কন্যা আসমা শরীফের বাসায়। সেখানে দলীয় নেতাকর্মী ও আত্মীয়-স্বজনরা তাকে স্বাগত জানান।