অধিকাংশ নারী যৌনতায় নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন

ইদানিং যৌনতা সম্পর্কে শিক্ষা দিয়ে থাকেন এবং এক্ষেত্রে ভিকটিমদের ক্ষেত্রে যারা কাউন্সিলিং করেন তারা বলছেন অসম্মতিতে যৌনতার সময় নারীরা মারাত্মক ভীতিকর অবস্থায় পড়েন। কারণ এধরনের যৌনতার ক্ষেত্রে শুধু নির্যাতন নয়, অস্বাভাবিক শারীরিক ধকল সইতে হয় নারীকে। পর্ন ছবিতে অভিনয়ের সময় একই ধরনের ভয়ংকর অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে যেতে হয় নারীকে। এধরনের পাশবিকতা যৌনতায় অতিরিক্ত পরিমানে বৃদ্ধি পাওয়ায় নারীদের মধ্যে যৌনতা নিয়ে ভীতি প্রবল হয়ে উঠছে। দি আটলান্টিক

একই সঙ্গে এধরনের যৌনতা পুরুষের মধ্যেও অস্বস্তি ও বিভ্রান্তিকর বার্তা দেয়। ধর্ষণের মত ঘটনা বেড়ে যাওয়া এধরনের সংকটও সামাজিকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। দুশ্চিন্তার বিষয় হচ্ছে অসম্মতিতে এধরনের রুক্ষ যৌনতা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং সম্মতির কোনো প্রয়োজন মনে করা হচ্ছে না। আর যতুটুক সম্মতিও আদায় করা হয় তা অনেকটাই জোরপূর্বক বা অর্থের বিনিময়ে হওয়ায় ভুক্তভোগী নারীর আর কিছুই করার থাকছে না। সমীক্ষায় এক চতুর্থাংশ মার্কিন নারী অকপটে স্বীকার করেছেন তারা যৌনতার সময় ভীতিকর অবস্থায় পড়েন।

বিশেষ করে যৌনতার সময় সংবেদনকে তীব্র করতে নারীকে চড় মারা, শরীরে আঘাত করা, থুথু ছিটানো, জান্তব আচরণ আনন্দকে দূরে ঠেলে দিচ্ছে। অনেকের ধারণা যৌনতায় এধরনের রুক্ষ আচরণ তাকে আরো অধিকমাত্রায় উত্তেজক ও কামুক করে তোলে কিন্তু সীমা ছাড়িয়ে যাওয়ার কারণে তা এক ধরনের মানসিক বৈকল্যের দিকে নারীকে নিয়ে যাচ্ছে। কারণ এধরনের সম্পর্কে উৎসাহসূচক কোনো সম্মতি থাকছে না বা এর কোনো প্রয়োজনও মনে করা হয় না। অনুমতি নেয়া ছাড়া নারীর ওপর এধরনের আচরণ করার ক্ষেত্রে ধরেই নেয়া হচ্ছে এমন জান্তব আচরণে সে সন্তষ্ট থাকছে। আদতে তা নারীর কাছে অপ্রত্যাশিত এবং তার কাছে যৌনতা সম্পর্কে নেতিবাচক অনুভূতি তৈরি করছে। এবং এক ধরনের ভীতি তাকে তাড়া করে ফিরছে।

যৌন বিশারদরা বলছেন, সবচেয়ে ভাল জিনিস হচ্ছে সঙ্গীর সঙ্গে কি ধরণের আচরণ করা হবে সে বিষয়ে কথা বলা, আনন্দের সঙ্গে ভীতিহীনভাবে সে তা গ্রহণ করছে কি না তা যাচাই করে নেয়া তা না হলে এমন অপ্রত্যাশিত আচরণ পারস্পরিক সম্পর্ক থেকে যোজন যোজন দূরে ঠেলে দিতে পারে। কারণ এধরনের আচরণের সময় নারীরা জানেও না কিভাবে সাড়া দিতে হবে, ফলে বিষয়টি একতরফা জান্তব ও বিরক্তিকর মুহুর্তের সমষ্টিতে পরিণত হয়। তার মনমানস পুরোপুরি এধরনের আচরণে বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। বরং এটাই ভাল তাকে জিজ্ঞেস করা, কি সে পছন্দ করে, রাজি কি না এবং তা হলে সম্মতির সঙ্গে পাল্টা সহযোগিতার দরজা খুলে যেতে পারে। কারণ যৌনতার পূর্ব শর্তই হচ্ছে উভয়ই এতে প্রশান্তি লাভ করবেন, পারস্পরিক বোঝাপড়ার মধ্যে দিয়ে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করবেন। এজন্যে সঙ্গীর মনের ভাব জানা তার অধিকার এবং তাতে সদয় সম্মতি ও সন্মানজনক আচরণ একান্তই প্রয়োজন।