বরিস জনসন ইইউ সম্প্রসারণের অনুরোধ প্রেরণ করেছেন তবে বলেছেন যে ‘এটি তাঁর পক্ষ থেকে নয়’

প্রধানমন্ত্রী ব্রেক্সিট দেরীতে করার জন‍্য চিঠি পাঠিয়েছেন ,তিনি অন‍্যদিকে আজ বিকালে পার্লামেন্টকে বলেছেন ব্রেক্সিটকেকে দেরী করার জন‍্য ই ইউ,র সাথে তিনি কোন আলোচনা করিবেন না।
বিষয়টিকে আরও বিস্ময়কর করার জন্য তিনি ব্রাসেলসকে একটি স্বাক্ষরবিহীন ফটোকপি প্রেরণ করেছেন, এটি জোর দিয়ে বলা হয়েছে যে এটি ‘সংসদের চিঠি’ এবং তার নয়।

তিনি এই চিঠি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে ইউরোপীয় কাউন্সিলের সভাপতি ডোনাল্ড তাস্ক বলেছেন: ‘বর্ধিতকরণের অনুরোধটি সবেমাত্র এসেছে। আমি এখন কীভাবে প্রতিক্রিয়া জানাতে হবে সে বিষয়ে ইইউ নেতাদের সাথে পরামর্শ করা শুরু করব। ’এই কথাটি আসার পরে একজন তদন্তকারী প্রধানমন্ত্রী কমন্সকে বলেছেন যে সংসদে বিব্রতকর পরাজয়ের পরে তিনি আর কোনও ইইউ সদস্যপদ সম্প্রসারণের বিষয়ে আলোচনা করবেন না। কমন্সসের একটি বিশেষ অধিবেশনে আজ সংসদ সদস্যরা জনসনের ব্রেক্সিট চুক্তির অনুমোদনের জন্য প্রয়োজনীয় সকল আইন কার্যকর না হওয়া পর্যন্ত ৩২২ থেকে ৩০৬ ভোট দেওয়ার পরে।
প্রাক্তন মন্ত্রিপরিষদ মন্ত্রী স্যার অলিভার লেটউইনের উপস্থাপিত সংশোধনীটি গত মাসে পাস হওয়া তথাকথিত বেন আইন মেনে চলতে বাধ্য করার উদ্দেশ্যে ছিল। এটি কোনও চুক্তি ছাড়াই ব্রেক্সিটকে অবৈধ করে তোলে এবং আইন প্রয়োগ করে তাকে আজকে রাত ১১ টা নাগাদ সংসদের মাধ্যমে কোনও চুক্তি না করতে পারলে ৩১ জানুয়ারির মেয়াদ বাড়ানোর কথা বলে। তবে আজ বিকেলে এই অপমানজনক আঘাতের পরে জনসন বলেছিলেন: ‘আমি খুব দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস অব্যাহত রেখেছি যে যুক্তরাজ্য এবং সমগ্র ইউরোপের পক্ষে সেরা বিষয়টি আমাদের ৩১ ই অক্টোবর এই নতুন চুক্তিটি ছেড়ে চলে যাওয়ার জন্য।’ এবং প্রত্যাশা করা বিষয়গুলি থেকে বিপরীতে যে প্রশ্নগুলি আসছে, আমি ইইউর সাথে কোনও বিলম্বের বিষয়ে আলোচনা করব না। আইনও আমাকে তা করতে বাধ্য করে না। ’
তিনি আজ রাতে টরি এমপি এবং পিয়ার্সকে প্রেরিত চিঠিতে তার অবস্থানের কথা পুনর্ব্যক্ত করেছেন এবং হ্যালোইনর মাধ্যমে তাকে ‘ব্রেক্সিট সম্পন্ন করতে’ সহায়তা করার জন্য তাদের সমর্থন দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। জনসন লিখেছেন: ‘আমি পরিষ্কার করে দিয়েছি যে আমি আর দেরি করতে চাই না। ইউরোপীয় নেতারা স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন যে তারা আর দেরি করতে চান না। ‘আমার অত্যন্ত দুঃখের বিষয় যে আজ হাউস আরও বিলম্বের পক্ষে ভোট দিয়েছে। ‘জনসাধারণ আমাদের ব্রেক্সিট সমৃদ্ধ করতে চান যাতে দেশটি এগিয়ে যেতে পারে। ইউনাইটেড কিংডম এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের জন্য সেরা জিনিসটি আমাদের ৩১ ই অক্টোবর এই নতুন চুক্তিটি ছেড়ে চলে যাওয়ার জন্য।
‘আমি ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে বিলম্বের বিষয়ে আলোচনা করব না। আমি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে আমার ৮৮ দিনের জন্য ব্রিটিশ জনসাধারণকে যা বলেছি তা আমি ইইউকে জানাব: আরও বিলম্ব কোনও সমাধান নয়। ‘তবে ইউ-টার্নে আপাতত প্রধানমন্ত্রী আজ সন্ধ্যায় ফোনে তাস্ককে বলেছেন যে তিনি তার খোঁজ করবেন মাস শেষে শেষ। ব্রাসেলস সূত্রগুলি ইঙ্গিত দিয়েছে যে চাইলে কোনও এক্সটেনশন সম্ভবত দেওয়া হবে। ইইউ সদস্যভুক্ত ২৭ সদস্য রাষ্ট্রের প্রতিনিধিরা আগামীকাল ওয়েস্টমিনস্টারে সর্বশেষ বাঁক এবং মোড় নিয়ে আলোচনা করতে বৈঠক করবেন।