জেএসডি স্টিয়ারিং কমিটির সভার প্রস্তাবনা

ডেঙ্গুর অস্বাভাবিক বিস্তার রোধে সরকারের ব্যর্থতায় দেশ জরুরী অবস্থার পর্যায়ে উপনীত। অবিলম্বে সেনাবাহিনী ও জনগণকে সম্পৃক্ত করে প্রতিরোধ করতে হবে।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি স্টিয়ারিং কমিটির সভার প্রস্তাবে বলা হয়েছে, ডেঙ্গুর অস্বাভাবিক বিস্তার রোধে সরকারের ব্যর্থতায় দেশ আজ জরুরী অবস্থার পর্যায়ে উপনীত হয়েছে। গত মার্চ-এপ্রিল থেকে ডেঙ্গুর বিস্তার শুরু হলেও এখন এসে বলা হচ্ছে এডিস মারার ঔষধ নেই। যা আছে তাও কার্যকর নয়। অর্থাৎ সরকারী কর্মকর্তা, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভা কর্র্তৃপক্ষ সরকারী খাতের টাকা মেরে খেয়েছে। এডিস মশা মারার ঔষধ আমদানী করেনি। যা করেছে তাও কম দামে নিম্নমানের ঔষধ। সর্বশেষ যেসকল ঔষধ আমদানী করা হয়েছে সেগুলোর বিশুদ্ধতা নিয়েও প্রশ্ন ওঠেছে। তাই এ সকল মন্ত্রী, আমলা, পৌর ও সিটি কর্তৃপক্ষের উপর নির্ভর করে তাদের ঝাড়ু চালানোর প্রশিক্ষনের তামাশা দেখে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব নয়। এজন্য অবিলম্বে সেনাবাহিনীকে মাঠে নামিয়ে, জনগণকে সম্পৃক্ত করে এডিস মশার প্রজননস্থল ধ্বংস করে ডেঙ্গু বিস্তার প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রন করতে হবে। এডিস মশার নিয়ন্ত্রন শুরু করতে হবে সকলের ঘর-বাড়ি, খাট-পালঙ্ক, চেয়ার-টেবিল, আলমারী, সেলফ এর কোনা কানা থেকে। নিয়ন্ত্রন করতে হবে নির্মানাধীন ভবন, ফুলের টব, ডাব-নারিকেলের খোসা, হাড়ি-পাতিলের টুকরা থেকে যা ব্যাপক জনসম্পৃক্তি ছাড়া সম্ভব নয়।

সভার অপর প্রস্তাবে সাম্প্রতিককালে হত্যা, নারী ও শিশু ধর্ষণ, ছেলেধরা আতঙ্ক ছড়িয়ে মানুষ হত্যা বন্ধে সরকার যেমন কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারছেনা তেমনি বন্যায় আক্রান্ত মানুষকে রক্ষার ক্ষেত্রেও সাফল্যের পরিচয় দিতে পারছেনা।

সভার সাংগঠনিক প্রস্তাবে আগামী ২৪ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য দলের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলকে সফল করার লক্ষ্যে ঈদ-উল আযহার পর থেকে জেলা ও উপজেলায় ব্যাপক সফর শুরুর উদ্যোগ গ্রহনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

আজ সকাল ১১ টায় জেএসডি সভাপতি জনাব আ স ম আবদুর রব এর সভাপতিত্বে তাঁর উত্তরাস্থ বাসভবনে অনুষ্ঠিত সভায় এ সকল প্রস্তাব গৃহীত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন জেএসডি সাধারণ সম্পাদক জনাবা আবদুল মালেক রতন, মোঃ সিরাজ মিয়া, মিসেস তানিয়া রব, জনাব শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন।