কোনো ভুল সংকেত পাঠানো এড়িয়ে চলুন, যুক্তরাষ্ট্রকে উদ্দেশ্য করে চীন

তাইওয়ানের স্বাধীনতার সমর্থকদের কোন ভুল সংকেত পাঠানো এড়িয়ে চলুন। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেনের মন্তব্যের প্রেক্ষিতে এক প্রতিক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রকে উদ্দেশ্য করে এ কথা বলেছে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ইত্তেফাক
রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিং আরও জানান, চীনের মূল স্বার্থের ক্ষেত্রে ছাড়ের কোন জায়গা নেই।
এর আগে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেছেন, চীন যদি তাইওয়ানে আক্রমণ করেন তাহলে যুক্তরাষ্ট্র তাইওয়ানকে রক্ষা করবে। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) এখবর দিয়েছে ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি। প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের একটি আইন আছে যার জন্য তাইওয়ানকে আত্মরক্ষায় সহায়তা করতেই হবে মার্কিনীদের।
অবশ্য তাইওয়ানের সঙ্গে সাম্প্রতিক উত্তেজনা বৃদ্ধির পেছনে যুক্তরাষ্ট্রকে দায়ী করে আসছে চীন। তাইওয়ানকে নিজেদের একটি প্রদেশ বলে মনে করে থাকে বেইজিং। অন্যদিকে চীনের প্রদেশ নয়, বরং নিজেকে একটি সার্বভৌম রাষ্ট্র বলে মনে করে থাকে তাইওয়ান।

তাইওয়ান পূর্ব এশিয়ার একটি দ্বীপ, যা তাইওয়ান প্রণালীর পূর্বে চীনা মূল ভূখণ্ডের দক্ষিণ-পূর্ব উপকূলে অবস্থিত। গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে চীন বার বার তাদের আকাশসীমা লঙ্ঘন করছে বলে অভিযোগ করে আসছে দ্বীপটি।