গণতন্ত্রপন্থী বিক্ষোভকারীরা লাল পতাকায় মুড়িয়ে দিলো ঐতিহাসিক ‘গণতন্ত্র তোরণ’

তরুণ অধিকার কর্মীরা থাইল্যান্ডের শক্তিশালী রাজতন্ত্রের অবমাননার আইন উপেক্ষা করে ব্যাংককের ‘গণতন্ত্র তোরণ’ লাল পতাকায় মুড়িয়ে দেয়। তারা বলেন, গণতন্ত্র তোরণে লাল পতাকার মানে গণতন্ত্রের জন্য রক্তক্ষয়ী লড়াই। গার্ডিয়ান

শনিবার রাতভর আতশবাজি ও পতাকা ফোটানো হয়। পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ হয়। বিক্ষোভকারীদের ওপর টিয়ারগ্যাস ও জলকামান ব্যবহার করে পুলিশ। বিক্ষোভকারীরা পুলিশের দিকে রং ছুঁড়ে মারে।

পুলিশের ডেপুটি মুখপাত্র কিসানা পাট্টেনাচারোয়েন বলেন, প্রায় ২০জনেরও বেশি অফিসার আহত হয়েছেন, ৭-৮জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

এই সপ্তাহে থাইল্যান্ডে গণতন্ত্রপন্থী ও রাজতন্ত্রের সংস্কার দাবী করা বিক্ষোভের চার নেতাকে গ্রেপ্তার করার পর থেকে নতুন করে আন্দোলন জোরালো হয়। তাদের বিরুদ্ধে গত বছরের সরকারবিরোধী বিক্ষোভ ও রাজতন্ত্রের অবমাননার অভিযোগ আনা হয়।

থাইল্যান্ডে রাজা, রাজপরিবার বা রাজতন্ত্রের অবমাননার জন্য ১৫ বছর পর্যন্ত ফৌজদারী শাস্তির বিধান রয়েছে। ছাত্র আন্দোলনকারীরা বলছেন, এই আইন দশক ধরে রাজনৈতিক বিরোধীদের দমন ও সামরিক-রাজতান্ত্রিক সুবিধার্ধে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। বিক্ষোভকারী চুটিমা কায়েনপেচ (২৪) বলেন, ‘আমরা ধারা ১১২ লোপসহ বিক্ষোভের চার নেতার মুক্তি ও এই আইনে গ্রেপ্তার হওয়া রাজনৈতিক নেতাদের মুক্তি চাই।

সেনা অভ্যুত্থানে ক্ষমতায় আসা থাইল্যান্ডের সাবেক সেনাপ্রধান ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুথ চান ওচা আইন অবমাননার কথা অস্বীকার করে বলেন, রাজনৈতিক বিরুদ্ধাচারণের অনুমোদন রয়েছে কিন্তু রাজার অবমাননার জন্য শাস্তি দেয়া হবে।