বৃটেনে লেবার-বিরোধী প্রচারণা বিজেপির!

ভারতের হিন্দুত্ববাদী ক্ষমতাসীন দল বিজেপি’র বৈদেশিক শাখা (ওএফবিজেপি) বৃটেনের আসন্ন নির্বাচনে প্রকাশ্যেই সমর্থন দিয়েছে কনজারভেটিভ দলকে। শুধু তা-ই নয়, মন্দিরে উপস্থিত হয়ে লেবার পার্টির বিরুদ্ধে প্রচারণা চালানো হচ্ছে। বৃটেনে বসবাসরত ভারতীয় বংশোদ্ভূত নাগরিকদের বলা হচ্ছে, কাশ্মীরিদের পক্ষে বক্তব্য দেওয়ায় লেবার পার্টিকে যেন কেউ ভোট না দেয়! এসব প্রচারণার ক্ষেত্র হয়ে উঠছে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও মন্দিরের মতো ধর্মীয় স্থান। যদিও মন্দির, মসজিদ, চার্চ ও দাতব্য সংস্থাকে রাজনৈতিক কাজে ব্যবহার না করার স্পষ্ট নির্দেশনা আছে বৃটিশ আইনে। এ খবর দিয়েছে বিজনেস রেকর্ডার।

খবরে বলা হয়, ওএফবিজেপি ইউকে-এর সভাপতি কুলদিপ সিং দাবি করেছেন, বৃটিশ ভারতীয় ভোটারদের কারণে অন্তত ৪০টি আসনের মোড় ঘুরে যেতে পারে। টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়, ১২ই ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে বৃটিশ ভারতীয়দের ভোটই পার্থক্য গড়ে দেবে এসব আসনে। কুলদিপ সিং বলেন, অন্তত ছয় জন ভারতীয় বংশোদ্ভূত লেবার প্রার্থীকে হারানোর লক্ষ্য তাদের।

তিনি আরও বলেন, তিনটি কারণে কনজারভেটিভ দলকে সমর্থন দিচ্ছে তার সংগঠন।
প্রথমত, ১৫ই আগস্ট ও ৩রা সেপ্টেম্বর ইন্ডিয়া হাউজের বাইরে প্রতিবাদে যুক্ত হয়েছিলেন কিছু লেবার এমপি। দ্বিতীয়ত, কাশ্মীর ইস্যুতে বৃটিশ পার্লামেন্টে কোনো লেবার এমপিই ভারতের পক্ষে বলেননি। তৃতীয়ত, কাশ্মীর নিয়ে লেবার পার্টির দলীয় সম্মেলনে প্রস্তাব পাস করা হয়েছে।

ওএফবিজেপি প্রধান আরও বলেন, কাশ্মীর হলো ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এ বিষয়ে লেবার পার্টি কেন আলোচনা করবে? আমরা শুধু সেই এমপিদেরই সমর্থন দেব যারা আমাদের সমর্থন দেবে।

প্রসঙ্গত, ২৫শে সেপ্টেম্বর লেবার পার্টি কাশ্মীর ইস্যুতে একটি জরুরি প্রস্তাবনা পাস করে। এতে দলীয় প্রধান জেরেমি করবিনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলা হয়, তিনি যেন ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকদের প্রবেশের দাবি তোলেন। পাশাপাশি কাশ্মীরি জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারের পক্ষে অবস্থান নেন।