সরকারের জোগসাজসেই পেঁয়াজের দাম লাগামহীন, বললেন জোনায়েদ সাকি

সরকারের যোগসাজশেই পেঁয়াজের দাম লাগামহীন হয়েছে। আজকে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে জনগণের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে। জনগণকে ডাকাতি করা হচ্ছে। সরকার লাগামহীন দাম নিয়ন্ত্রণে কেবল ব্যর্থ নয়, সরকার এই ডাকাতির সুফলভোগী। ‘আমরা সাধারণ জনগণ’ আয়োজিত পেঁয়াজ চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণের দাবিতে অবস্থান কর্মসূচিতে গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি এসব কথা বলেন।

রোববার (২৪ নভেম্বব) কারওয়ান বাজারের শ্রমজীবী ফিরোজা বেগমের সভাপতিত্বে এবং আমরা সাধারণ জনগণ ব্যানারে টিসিবি ভবনের সামনে পেঁয়াজ চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণসহ ৬ দফা দাবিতে টিসিবি ভবসের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালিত হয়।

তিনি বলেন, শুধু পেঁয়াজই নয়, ওষুধপত্র, চালসহ বাজারের প্রত্যেকটি পণ্যের দাম আগের চেয়ে বেড়েছে। পণ্যের দাম বাড়িয়ে টাকা হাতিয়ে নেয়া, প্রকল্পের মাধ্যমে টাকা চুরি করা, ভোট ডাকাতি করা সবই একই সূত্রে গাথা। যারা ভোট চুরি করে অন্যায়ভাবে ক্ষমতায় আসীন হয়েছে অন্যদের চুরি দুর্নীতির বিচার করার নৈতিক শক্তি তাদের নেই।

সংহতি বক্তব্যে সিপিবির সহ-সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ জহির চন্দন বলেন, বাজারে পেঁয়াজের অভাব নেই, অথচ ৩০ টাকার পেঁয়াজ ২৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রয়োজনের চেয়ে বেশি পেঁয়াজ আমদানি করার পর দাম কমছে না কেন? এর জবাব সরকারকে দিতে হবে।

ফিরোজা বেগম বলেন, নিম্ন আয়ের মানুষদের দিকে সরকারের কোনো খেয়াল নেই। জিনিসপত্রের দাম বাড়লে মানুষের পকেটে আর কোনো টাকা থাকে না। বাজারের হকার উচ্ছেদ করা হয় কিন্তু হাকরদের কেন পুনর্বাসন করা হয় না। আগামী সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আগেই হকার পুনর্বাসন করতে হবে।

ফিরোজা বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অবস্থান কর্মসূচিতে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি ছাত্র নেতা গোলাম মোস্তফা, বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতির সাধারণ সম্পাদক জুলহাসনাইন বাবু, জাহিদ সুজন, তানভীর হাসান প্রমুখ।