কাশ্মীর ও লাদাখের নতুন যাত্রা

উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা, বিতর্ক ও পাকিস্তানের সঙ্গে সামরিক উত্তেজনার মধ্যেই ভারত শাসিত জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখের নতুন পরিচয়ে যাত্রা হচ্ছে আজ। এ দুটি অঞ্চল বৃহস্পতিবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে গণ্য হবে। সমকাল

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দিনটিকে কেন্দ্র করে যে কোনো ধরনের সন্ত্রাসী তৎপরতা রুখে দিতে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে। এমনকি দিল্লিতেও সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

গত ৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করে স্বায়ত্তশাসন ও বিশেষ মর্যাদা রদের মধ্য দিয়ে ভূস্বর্গখ্যাত জম্মু ও কাশ্মীরকে দুটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার। এর মধ্য দিয়ে স্বশাসন, নিজস্ব পতাকা ও ভূমিতে কাশ্মীরিদের একক অধিকারের বিশেষ অধিকার বিলোপ হয়।

৫ আগস্টের পর উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবেলার দোহাই দিয়ে সেখানে কয়েকহাজার অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করা হয়। সেই থেকে কার্যত অবরুদ্ধ রয়েছে কাশ্মীর। সরকার কাশ্মীরিদের স্বাভাবিক জীবনযাত্রার প্রতিশ্রুতি দিলেও তা এখনও সম্ভব হয়নি।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জম্মু-কাশ্মীরের অধিকাংশ স্কুল-কলেজ এখনও শিক্ষার্থীশূন্য। বন্ধ রয়েছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। চলতি মৌসুমে বাগানে পচে গেছে শত শত কোটি রুপির আপেল। সব মিলে প্রায় তিন মাস ধরে অবরুদ্ধ থাকা কাশ্মীরে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ১১ হাজার কোটি রুপি ছাড়িয়েছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা অচলই বলা যায়। ইন্টারনেট সেবা পুরোটাই বন্ধ। মোবাইল ফোন পরিসেবা কোনোমতে চলছে।

ভারতের প্রথম উপ-প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয়তাবাদী নেতা সরদার বল্লভভাই প্যাটেলের জন্মতারিখ অনুযায়ী ৩১ অক্টোবরে কেন্দ্রশাসিত কাশ্মীর ও লাদাখের নতুন পথচলার দিন ঘোষণা করে বিজেপি সরকার। সে অনুযায়ী বৃহস্পতিবার থেকে কেন্দ্রীয়ভাবে শাসিত হবে অঞ্চল দুটি। জম্মু-কাশ্মীরের প্রথম উপরাজ্যপাল হিসেবে এদিন শপথ নেবেন সি. জে. মুর্মু। সাবেক এই আমলা প্রধানমন্ত্রী মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর খুবই ঘনিষ্ঠ।

অন্যদিকে লাদাখের উপরাজ্যপাল হিসেবে শপথ নেবেন আরেক সাবেক সরকারি কর্মকর্তা রাধাকৃষ্ণ মাথুর। এরপর থেকে তারা হবেন দুটি অঞ্চলের সর্বোচ্চ প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী।