১৪ দলের চিঠির জবাবে মেনন

সম্প্রতি বরিশালে এক জনসভায় ক্ষমতাসীন ১৪ দলের শরীক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, জনগণ আমাদের ভোট দেয় নাই’। তার এ বক্তব্য নিয়ে খোঁদ ১৪ দলের ভেতরেই সমালোচনার সৃষ্টি হয়। বিষয়টি নিয়ে আওয়ামী লীগের দলীয় ফোরামসহ ১৪ দলের সমন্বয় সভাতেও আলোচনা হয়। কিন্তু ওই সভায় অনুপস্থিত ছিলেন না মেনন বা তার দলের কোন প্রতিনিধি। তাই তার বক্তব্যের ব্যাখ্যা চেয়েছে ১৪ দল। গত ২৪ শে অক্টোবর ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম এ ব্যাপারে ব্যাখ্যা চেয়ে একটি চিঠি দেন তাকে। গতকাল ওই চিঠির জবাব দিয়েছেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি।

চিঠিতে মেনন বলেছেন, আমি বরিশালে দেয়া বক্তব্যের পরদিনই সংবাদ মাধ্যমে ওই বক্তব্যে জাতীয় ও চৌদ্দদলে যে ভুল বার্তা গেছে সেটি বলেছি।
পরবর্তীতে ২৩শে ডিসেম্বর পার্টি ঢাকা জেলা সম্মেলনে সুস্পষ্টভাবেই বলেছি, ওয়ার্কার্স পার্টি ১৪ দলে ছিলো এবং আছে। আমার বরিশালে দেয়া বক্তব্য নিয়ে যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে, তা নিয়ে দুঃখ প্রকাশও করেছি।

১৪ দলের মুখপাত্র নাসিমকে উদ্দেশ্য করে মেনন বলেন, আপনার জানা আছে, গত ৩০ শে ডিসেম্বরের নির্বাচনের ব্যাপারে চৌদ্দদলের বিশ্লেষণ সম্পর্কে আমি মূলগতভাবে একমত। নির্বাচন পরবর্তীতে এবং এই সময়কালে বিভিন্ন গণমাধ্যমে আমাদের পার্টির অবস্থান ও বক্তব্য প্রেস বিবৃতি হিসেবে প্রকাশিতও হয়েছে।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, বরিশালে ওই বক্তৃতায় নির্বাচনে জনগণের অনুৎসাহ, ভোটার অনুপস্থিত সম্পর্কিত বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে প্রসঙ্গত জাতীয় নির্বাচন নিয়ে যে কথা বলেছি তাতে অতিশয়েক্তি ঘটায় এই বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। আমার বক্তব্যের খন্ডিতাংশ উদ্ধৃত হওয়াতে ওই বক্তব্যের ভিন্ন অর্থ দাঁড়িয়েছে।

মেনন বলেন, আমি আশা করি, আমার এই বক্তব্য ও ৩০শে ডিসেম্বর নির্বাচন ও চৌদ্দদল সম্পর্কে পূর্বাপর আমার ও ওয়ার্কার্স পার্টির অবস্থা বিবেচনায় বরিশালে আমার বক্তৃতায় যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে তার অপনোদন হবে।

চিঠিতে আরও বলা হয়, একটি বিষয়ের প্রতি আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। তা হলো চৌদ্দদলে যে আলাপ-আলোচনার ভিত্তিতে এই চিঠি পাঠিয়েছেন সে আলোচনায় ওয়ার্কার্স পার্টির প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলো না। তারা উপস্থিত থাকলে বিষয়টি পরিস্কার হয়ে যেতো। আমি আশা করি, আমার এই উত্তর আপনাকে সন্তুষ্ট করবে।