সৌদি-ইরানের মধ্যে উত্তেজনা নিরসনে তেহরান সফরে যাচ্ছেন ইমরান খান

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান রোববার তেহরান সফরে যাচ্ছেন। সৌদি ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনার চেষ্টার অংশ হিসেবে তিনি দেশটিতে যাচ্ছেন।

শুক্রবার পাকিস্তানের কর্মকর্তারা এমন কথাই জানিয়েছেন বলে এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের খবরে বলা হয়েছে। যুগান্তর

এক্সপ্রেস ট্রিবিউন জানায়, ইরান ও সৌদি আরবে পাকিস্তানের এক শীর্ষ কর্মকর্তার অঘোষিত সফরের মধ্য দিয়ে দুই বৈরী দেশের মধ্যে শত্রুতা কমিয়ে আনতে ইমরান খানের মধ্যস্থতার ভিত তৈরি করা হয়েছে। গত সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহে এই সফর করা হয়েছে।
দুই দেশের রাজধানীতে তার সফরে ইরান ও সৌদি কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন তিনি। তবে এই গোপনীয় সফর নিয়ে আনুষ্ঠানিক কোনো বিবৃতি আসেনি। কিন্তু এতে বেশ কয়েকটি বিষয় নিয়ে আলোচনা ও দেশ দুটিতে ইমরান খানের সফরে উৎসাহিত করা হয়েছে।

পর্যবেক্ষকদের তথ্যানুসারে, পাকিস্তানের চেষ্টা বলে দিচ্ছে, ইরান ও সৌদি আরবের মধ্যস্থতার ক্ষেত্রে ইসলামাবাদ খুবই গুরুত্ব দিচ্ছে।
নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনের ফাঁকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ইরানি প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির সঙ্গে ইমরান খানের বৈঠকের পরবর্তী কয়েক দিনের মধ্যে ওই শীর্ষ পাক কর্মকর্তা দেশ দুটিতে সফরে যান।

এদিকে নিউইয়র্কে পা রাখার আগে সৌদি আরবে গিয়েছিলেন ইমরান খান। পরবর্তী সময়ে তিনি বলেন, ইরানের সঙ্গে মধ্যস্থতা করতে ট্রাম্প ও যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান তাকে অনুরোধ করেছেন।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর সৌদি আরবের দুটি তেল স্থাপনায় ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে দেশটির তেল উৎপাদন অর্ধেকে নেমে গিয়েছিল।

এদিকে নিউইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সৌদি আরব ও ইরান
পরোক্ষভাবে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। উত্তেজনা কমাতে পাকিস্তান ও ইরাককে আহ্বানজানিয়েছেন সৌদি যুবরাজ।