ডাকসুর ভিপি ছিলাম সেই ইতিহাসও মুছে ফেলা হচ্ছে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, আমি ডাকসুর ইতিহাসে দুবার ভিপি নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেছি। অথচ এখন ডাকসুর বোর্ড থেকে আমার নাম মুছে ফেলা হচ্ছে। এখন আবার আমার ভর্তি প্রক্রিয়া নিয়েও প্রশ্ন তোলা হচ্ছে। কেন এসব ষড়যন্ত্র চলছে তা আমার জানা নেই। এসব বিষয়ে এখন আর কথা বলতে ভালোও লাগে না। এভাবে ছাত্র রাজনীতির ইতিহাস মুছে ফেলা যায় না। বাংলাদেশ প্রতিদিন

তিনি আরও বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জন নেতৃত্ব দিয়েছেন। আমি সুদীর্ঘ সময় ডাকসুতে নেতৃত্ব দিয়েছি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা স্বচ্ছ করার পদক্ষেপ নিতে তৎকালীন উপাচার্য ফজলুল হালিম চৌধুরীর সঙ্গে কাজ করেছি। আমি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (চাকসু) সাধারণ সম্পাদক ছিলাম। সেখান থেকেও আমার নাম মুছে ফেলা হয়েছে। এসব ষড়যন্ত্র দীর্ঘদিন ধরেই চলছে। আমার ভর্তি প্রক্রিয়া নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কোনো কথা বলতে পারেনি। কারণ কারও বিরুদ্ধে বলতে প্রমাণ হাজির করতে হয়। নিজের দোষ ঢাকতে অন্যকে দোষারোপ করা উচিত নয়।

সাবেক এ ছাত্রনেতা আরও বলেন, আমার জীবনযাপন কিংবা আর্থিক অবস্থার গোপনীয় কিছু নেই। আমি বিপুল বিত্তবৈভবের মালিক হয়েছি এসব কথা বলা হাস্যরসের শামিল। টকশোতে কিছু মানুষের দুর্নীতি নিয়ে কথা বলায় আমার বিষয়ে তথ্যপ্রমাণ ছাড়াই এসব ছড়ানো হচ্ছে। কিন্তু আমি তাদের সঙ্গে কাদা ছোড়াছুড়িতে যাব না। বুকে সাহস নিয়ে সত্য বলি, সেটাই বলব। মিথ্যা কুৎসা রটনা করে দুর্নীতি ঢাকা যায় না।