‘আবকি বার ট্রাম্প সরকার’ মোদির বিরুদ্ধে পররাষ্ট্রনীতি লঙ্ঘনের অভিযোগ

যুক্তরাষ্ট্রের সমাবেশে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের পক্ষে নির্বাচনী রাজনীতিতে অনুমোদন দেয়ায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ওপর ক্ষুব্ধ বিরোধী কংগ্রেস পার্টি। তারা বলছে, এর মধ্য দিয়ে মোদি ভারতের পররাষ্ট্রনীতি লঙ্ঘন করেছেন। রোববার টেক্সাস রাজ্যের হিউজটনে বিশাল এক জনসমাবেশে ট্রাম্পের ভূয়সী প্রশংসা করেন মোদি। এ সময় তিনি বলেন ‘আবকি বার ট্রাম্প সরকার’। যার অর্থ আরো একবার (দরকার) ট্রাম্প সরকার। মোদির এমন মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছেন কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা আনন্দ শর্মা। তিনি টুইটারে বলেছেন, ভারতের পররাষ্ট্রনীতিতে সম্মানের যে স্থানটি ছিল তা লঙ্ঘন করেছেন মোদি। তিনি অন্য দেশের নির্বাচনী রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করে এমনটা করেছেন। এ খবর দিয়েছে অনলাইন জি নিউজ।

ধারাবাহিক টুইটে আনন্দ শর্মা বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী আপনি অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ নির্বাচনে হস্তক্ষেপ না করার ভারতীয় যে পররাষ্ট্রনীতি আছে তা লঙ্ঘন করেছেন। এটা ভারতের দীর্ঘমেয়াদী কৌশলগত স্বার্থের বিরুদ্ধে একটি প্রতিবন্ধকতা। তিনি আরো অভিযোগ করেন, ট্রাম্পকে অনুমোদনের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের যেমন তেমনি ভারতের সার্বভৌমত্বকে লঙ্ঘন করেছেন মোদি। টুইটারে তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক দ্বিপক্ষীয়, একই সঙ্গে তা যেমন রিপাবলিকানদের সঙ্গে, ডেমোক্রেটদের সঙ্গেও একই সম্পর্ক। মোদিকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ভারত এবং যুক্তরাষ্ট্র দুটি সার্বভৌম এবং গণতান্ত্রিক দেশ। এক্ষেত্রে ট্রাম্পের পক্ষে আপনি সক্রিয় প্রচারণা চালিয়ে দুই দেশের সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্রকে লঙ্ঘন করেছেন। আপনাকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই যে, আপনি যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে। সেখানকার নির্বাচনে তারকা প্রচারণাকারী হিসেবে আপনি যান নি।
উল্লেখ্য, টেক্সাসের হিউজটনে আয়োজিত ‘হাউডি মোদি’ অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে প্রশংসায় ভাসিয়ে দিয়েছেন মোদি। তিনি বলেন যে, ট্রাম্প প্রশাসনের অধীনে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ভারতের সুসম্পর্ক রয়েছে। এ সময়েই মোদি বলেন, ‘আবকি বার ট্রাম্প সরকার’। ওই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তিনিও সেখানে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করেন।