‘সব অযোগ্যদের উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে আওয়ামী লীগ’

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আওয়ামী লীগ সব অযোগ্যদের উপাচার্য নিয়োগ দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ শুক্রবার বেলা ১১টায় রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী যুবদল আয়োজিত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশে তিনি মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আজ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য যাদের আমরা অনেক সম্মান করি, তারাও ঘুষ-কমিশন বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে আন্দোলন চলছে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক সবাই আন্দোলন করছে। আরও কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলন চলছে। অযোগ্যদের উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে আওয়ামী লীগ।

দেশের আইনশৃঙ্খলা ও বিচারব্যবস্থা প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, খালেদা জিয়া চরম অসুস্থ কিন্তু আমরা নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে তার জামিন চাচ্ছি, তাকে জামিন দেওয়া হচ্ছে না। অথচ বর্তমান সরকারের আমলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের নামে থাকা সাড়ে সাত হাজার মামলা তুলে নেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মামলাও তুলে নেওয়া হয়েছে।

রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে এ বিএনপি নেতা বলেন, আজ দশ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়ে বসে আছে। তাদের দেশে ফেরানোর কোনো কার্যকর উদ্যোগ নেই। প্রধানমন্ত্রী মাদার অব হিউম্যানিটি খ্যাত। কিন্তু আমাদের মাদার অব হিউম্যানিটি একজন রোহিঙ্গাকেও দেশে ফেরাতে পারলেন না।

বর্তমান সরকারকে উদ্দেশ্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, অবিলম্বে দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন। সংসদ ভেঙে দিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন। না হলে দেশের জনগণের কাছে আপনাদের অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে।

যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরবের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দীন টুকুর পরিচালনায় মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু, সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন, সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হাসান, যুবদল উত্তরের সভাপতি এসএম জাহাঙ্গীর, সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মিল্টন, দক্ষিণের সভাপতি রফিকুল আলম মজনু, সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহীন, যুবদল নেতা আলী আকবর চুন্নু, গিয়াস উদ্দিন মামুন, সাবেক যুবদল নেতা দেবাশীষ রায় মধু প্রমুখ।