অসহিষ্ণুতার প্রতিবাদে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছিলেন ৪৯ বুদ্ধিজীবী

ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত, রাষ্ট্রদ্রোহিতা-সহ কয়েকটি ধারায় যাতে এই বুদ্ধিজীবীদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়, পিটিশনে সেই আর্জি রয়েছে। পিটিশনে সাক্ষী করা হয়েছে কঙ্গনা রানাওয়াত, মধুর ভাণ্ডারকর, বিজয় অগ্নিহোত্রীদের। ভারত জুড়ে অসহিষ্ণুতার প্রতিবাদে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছিলেন ৪৯ বুদ্ধিজীবী। সেই তালিকায় ছিলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, অপর্ণা সেন, কৌশিক সেন প্রমুখ। এবার তাঁদের বিরুদ্ধে বিহারের মুজফ্‌ফরপুর আদালতে মামলা রুজু হল। শনিবার বিহার আদালতে মুখ্য বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে এই মর্মে পিটিশন দাখিল করেছেন এক আইনজীবী।

ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত, রাষ্ট্রদ্রোহিতা-সহ কয়েকটি ধারায় যাতে এই বুদ্ধিজীবীদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়, পিটিশনে সেই আর্জি রয়েছে। পিটিশনে সাক্ষী করা হয়েছে কঙ্গনা রানাওয়াত, মধুর ভাণ্ডারকর, বিজয় অগ্নিহোত্রীদের। এঁরাই ৬১ জন মিলে পালটা চিঠি মোদীর সমর্থনে চিঠি লিখেছিলেন। অভিযোগ, ৪৯ জনের ওই চিঠিতে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে। নরেন্দ্র মোদীর কাজকেও ছোট করা হয়েছে।

আদালত সূত্রে খবর, আগামী ৩ অগস্ট বিহার আদালতে এই মামলার শুনানি হবে। উল্লেখ্য, মোদীকে লেখা চিঠিতে বলা হয়েছে, দেশজুড়ে গোমাংস খাওয়া নিয়ে রাজনীতি হচ্ছে, জয় শ্রীরাম না-বলায় পেটানো হচ্ছে। এমনকী হত্যা পর্যন্ত করা হচ্ছে। বারবার এটা হওয়া উচিত নয়।

অপর্ণা সেন সাংবাদিক সম্মেলনে প্রশ্ন তোলেন, কেন অন্য ধর্মের মানুষকে জোর করে ‘জয় শ্রীরাম’ বলানো হচ্ছে? আমি একজন হিন্দু। আমাকে যদি জোর করে এখন আল্লাহু আকবর বলতে বাধ্য করা হয়, তা হলে কি আমার ভালো লাগবে? টাইমস অব ইন্ডিয়া