দেবর ভাবীর দ্বন্দ্বে সংকটে জাতীয় পার্টি

জাতীয় পার্টিতে দলের নেতৃত্ব নিয়ে প্রকাশ্যেই দেবর-ভাবির সংঘাত শুরু হয়েছে। আর এ কারণে সংকট সৃষ্টি হয়েছে। দল ভেঙে যেতে পারে এমন আশংকাও করা হচ্ছে।

এরশাদ নিজের জীবদ্দশাতেই ছোট ভাই কাদেরকে তাঁর ঠিক পরের পদ অর্থাৎ ভাইস চেয়ারম্যান করেছিলেন। সাবেক রাষ্ট্রপতির মৃত্যুর পর কাদের আচমকাই নিজেকে চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা করে দেন। কিন্তু এরশাদের স্ত্রী রওশন দেবর কাদেরকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে স্বীকৃতি দিতে নারাজ৷ গত সোমবার রাতে রওশন-সহ জাতীয় পার্টির (জাপা) নয়জন নেতার তরফে দেয়া এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানানো হয়। ফলে এরশাদবিহীন অথৈ জলে তাঁর দল জাতীয় পার্টি।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক রিয়াজউদ্দিন আহমেদ বলেন, “জাতীয় পার্টি কোনও রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় গঠিত হয়নি। এটি ক্ষমতাকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে। এখানে ক্ষমতার দ্বন্দ্ব রয়েছে। দলে এরশাদের নেতৃত্বে একটি ধারা রয়েছে। আরেকটি ধারা কাদেরকে কেন্দ্র করে। এই ধারাই কিন্তু একসময় ভেঙে যেতে পারে।’’

তিনি আরো বলেন, জাতীয় পার্টি সুবিধাবাদী রাজনীতি করেছে। যার কারণে এক সময় ক্ষমতা ভোগ করেছেন তারা। এক সময় ছিটকেও পড়েছে ক্ষমতার বলয় থেকে। আবার রাজনৈতিক ঘুঁটি সাজিয়ে ক্ষমতার কেন্দ্রে প্রবেশ করেছে। কিন্তু সব কিছুই ছিল এরশাদকে কেন্দ্র করে।তাই তাঁর অবর্তমানে জাপা দিশাহীন।

এইচএম এরশাদের মৃত্যুর পর দলের নেতৃত্ব নিয়ে দ্বন্দ্ব-গ্রুপিংয়ের অবসান ঘটাতে তৎপর ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কাদের। এর অংশ হিসেবে তিনি দলের সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদের গুলশনের বাসায় যান। প্রায় দেড় ঘণ্টা দুজনে একান্তে কথা বলেন। দলে ও সংসদে নেতৃত্ব নিয়ে মতবিরোধ কাটাতে সমঝোতায় পৌঁছানোর লক্ষ্যে এ সময় তাঁরা একটি ফর্মুলা নিয়ে আলোচনা করেন। ফর্মুলা অনুযায়ী সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে এরশাদের স্থলাভিষিক্ত হবেন রওশন। আর দলের চেয়ারম্যান হিসেবে জিএম কাদেরই দায়িত্ব পালন করবেন। সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব