জাতীয় পার্টির ভবিষ্যৎ কোন দিকে

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের অবর্তমানে পার্টির কৃর্তত্ব কার নিয়ন্ত্রণে থাকবে এ নিয়ে দলটির ভেতরে চলছে জল্পনা-কল্পনা।এরশাদ তার ভাই জিএম কাদেরকে এরশাদের অবর্তমানে পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা করলেও দলের ভিতরে থাকা কয়েকজন সিনিয়র নেতা এরশাদের এ সিদ্ধান্তকে মেনে নিতে পারেননি।তারা চাচ্ছেন পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান বেগম রওশন এরশাদকে পার্টির ভবিষ্যৎ চেয়ারম্যান বানাতে।অন্যদিকে আওয়ামীলীগের এক প্রভাবশালী নেতার সঙ্গে মাসখানেক আগে বৈঠক হয়েছে বিদিশা এরশাদের।আওয়ামীলীগের মধ্যেও একটি মহল চাচ্ছে বিদিশা ফের জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে সক্রিয় হোন, নেতৃত্ব দেন।কারণ বিদিশার সঙ্গে আওয়ামীলীগের সম্পর্ক ভাল।বিদিশার সঙ্গে জিএম কাদেরেরও ব্যাক্তিগত সম্পর্ক ভালো।জিএম কাদের পার্টির ভবিষ্যৎ চেয়ারম্যান ঘোষণা করায় তৃণমূল নেতাকর্মীদের মাঝে স্বস্তি বিরাজ করলেও দলের ভেতরের অনেক সিনিয়র নেতাই বিদিশা নেতৃত্বে আসেন সেটি চাচ্ছেন না।

জিএম কাদের সম্প্রতি বলেছেন, ‘এরশাদের অনুপস্থিতিতে দলে নেতৃত্বের সমস্যা হবে না । দলের নেতাকর্মীদের রায় নিয়েই যে ই নেতৃত্বে আসেন তাকেই বরণ করে নিবে দল এবং জাতীয় পার্টির নেতৃত্বে নতুন জোটও গঠন করা হবে।তার এ বক্তব্যের বিষয়ে জাতীয় পার্টির এক প্রভাবশালী নেতা ( যিনি নির্বাচনের সময় টাকা খেয়ে প্রার্থীদের মনোনয়ন দিয়েছেন বলে সমালোচিত) বলেন, ‘জিএম কাদের অলরেডি বিভিন্ন দলের সঙ্গেও যোগাযোগ করছেন।কিন্তু তিনি নিজেও জানেন না তার নেতৃত্ব রাঙ্গাসহ আমরা কেউই মেনে নিবো না।আমরা রওশন এরশাদকেও চাই না।আমরা চাই জাতীয় পার্টি পারিবারিক উত্তরাধিকারের রাজনীতি থেকে মুক্তি পাক।’

পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা বলেন,‘আমি বারবার বলেছি, এ পার্টিতে এরশাদের সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত।পার্টির ভাঙন ঠেকাতে এরশাদ যে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন সেটি আমরা মানবো।’ দলের যুগ্ম-মহাসচিব হাসিবুল ইসলাম বলেন,‘স্বাধীনতা পরবর্তী ইতিহাস দেখলে আমরা বুঝতে পারবো এ দেশে পরিবারের বাইরে কোনো পার্টি টিকে থাকতে পারেনি। মুসলিমলীগ ও জাসদও আজ হারিয়ে যাচ্ছে। যারা এরশাদ পরিবারের বাইরে কাউকে নেতা বানানোর চেষ্টা করছেন তারা প্রকৃতপক্ষে এরশাদ ও জাতীয় পার্টির মঙ্গল কামনা করেন না।’ তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সিনিয়র নেতা বলেন,‘একটি চক্র এরশাদের অনুপস্থিতিতে দলে ভাঙন ধরিয়ে জাতীয় পার্টিকে রাজনীতি থেকে গুডবাই জানাতে চাইছে।সেজন্য রওশন এরশাদ, বিদিশর নাম বারবার আসছে।কিন্তু দলকে টিকে থাকতে হলে জিএম কাদেরের নেতৃত্বই মেনে নিতে হবে।’

বিদিশা এরশাদ বলেন, ‘ দলের নেতাকর্মী চাইলে আমি রাজনীতিতে ফিরব। নাহলে নয়। কারণ ক্ষমতার মোহ আমার নেই।তবে এটি নিশ্চিত রংপুরের মানুষ আমাকে ভালবাসে।’