পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ আলোচনা আবারও চালু করতে একমত ট্রাম্প-কিম

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং উত্তর কোরিয় নেতা কিম জঙ উন পরমানু নিরস্ত্রিকরণ আলোচনা পুনরায় শুরু করতে একমত হয়েছেন। রোববার কোরিয়ার অ-সামরিক এলাকার দক্ষিণ অংশে ৫০ মিনিট বৈঠক করে এই সিদ্ধান্ত নেন দুই নেতা। রুদ্ধদ্বার এই বৈঠকের পর দুই নেতাই এই সিদ্ধান্তের কথা জানান। সিএনএন, বিবিসি।

অ-সামরিক এলাকার ‘ফ্রিডম হাউজে’ অনুষ্ঠিত হয় এই দ্বিপাক্ষিক বৈঠক। প্রায় অনির্ধঅরিত এই বৈঠক মাত্র এক দিনের প্রস্তুতিতে অনুষ্ঠিত হয়। সকালে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইনের সঙ্গে অসামরিক এলাকায় আসেন ট্রাম্প। এরপর কিম এসে তাকে স্বাগত জানান। এরপর ট্রাম্প কিমকে সঙ্গে করে উত্তর কোরিয়ার নিয়ন্ত্রনাধীন এলাকায় প্রবেশ করেন। বৈঠকের পর নিজ দেশে ফিরে যান কিম।

ট্রাম্প এবং মুন সীমান্তে দাঁড়িয়ে তাকে বিদায় জানান। এরপর গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন ট্রাম্প আর মুন। ট্রাম্প বলেন, ‘গতি খুব বড় বিষয় নয়। আমরা যতই দেরি হোক একটি ভালো, কার্যকর চুক্তির অপেক্ষায় আছি আমরা। কিম এই বৈঠককে ঐতিহাসিক বলে অভিহিত করেছেন। এখ নপর্যন্ত অনেক কিছুই হয়েছে। আমি যখন প্রেসিডেন্ট হই সব বিশৃঙ্খল ছিলো। এখন সব ঠিক হয়ে গেছে। গত আড়াই বছরে আমরা শান্তি পেয়েছি। আমরা কোন কিছু স্বাক্ষর করিনি, যা হয়েছে পারস্পরিক সম্পর্কের ভিত্তিতেই হয়েছে।’ ট্রাম্প আরো জানান, বিশেষ প্রতিনীধি স্টিভ বিগানের নেতৃত্বে আলোচনা চালু হবে।

এদিকে সীমান্তে যাওয়ার সময় কিম বলেন, ‘আসল সত্য হলো এখন থেকে আমরা যেকোন স্থানে যেকোন সময় বৈঠক করতে পারি। এই বৈঠকের বার্তা এটিই।’ এদিকে মুন বলেছেন এই বৈঠক ৮০ কোটি কোরিয়ানের মাঝে নতুন আশার সঞ্চার করেছে। তিনি বলেন, ‘আমকের বৈঠকে কোরিয় উপদ্বীপে পরমাণু নিরস্ত্রিকরণ এবং শান্তি প্রতিষ্ঠার নতুন সম্ভাবনা তৈরী হয়েছে। আমি বিশ^াস করি পুরো প্রক্রিয়াটিই আমরা এগিয়ে নিতে পেরেছি। আজ ৮০ কোটি কোরিয়ান আমাদের ধন্যবাদ দিচ্ছে। এরপর আবারও ট্রাম্পকে নিয়ে সিউলের পথে রওনা দেন মুন