সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ, তদন্ত কমিটি গঠন

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় ব্রিজ ভেঙে সিলেট থেকে ঢাকাগামী উপবন এক্সপ্রেসের ১টি বগি খালে পড়ে গেছে এবং আরও ৫টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ। দুর্ঘটনার পর থেকেই উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ ও স্থানীয় জনগণ। রোববার রাত ১২টার দিকে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার বরমচাল স্টেশনের পাশে ঘটনাটি ঘটে।

এ ঘটনায় সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধান করতে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের প্রধান যান্ত্রিক প্রকৌশলী মো. মিজানুর রহমানকে প্রধান করে চার সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। সোমবার (২৪ জুন) সকালে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোফাজ্জেল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সোমবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন রেল সচিব। তিনি বলেন, সন্ধ্যার মধ্যে রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হবে।

কুলাউড়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) উয়ারদৌস হাসান জানান, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস হতাহতদের উদ্ধারে কাজ করছে। ইতোমধ্যে উদ্ধারকাজে বিজিবি অংশ নিয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের সিলেটের সহকারী পরিচালক মুজিবুর রহমান বলেন, হতাহতদের উদ্ধারে সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ, দক্ষিণ সুরমা ও সিলেট সদর দফতর থেকে দমকল বাহিনীর একাধিক ইউনিট যোগ দিয়েছে। উদ্ধার অভিযান চলছে।

এদিকে গত ১৮ জুন থেকে শাহবাজপুরে তিতাস নদীর সেতুর স্প্যান ভেঙে যান চলাচল বন্ধ থাকায় সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছেন সিলেট বিভাগসহ আশপাশের দুই কোটি মানুষ। বিশেষ করে বিদেশগামী যাত্রী, অসুস্থ যাত্রী, চাকরিজীবী ও পর্যটকরা বেশি বিপাকে পড়েছেন। সিলেট থেকে সারাদেশে বাস যোগাযোগ বন্ধ রেখেছে গ্রীন লাইন পরিবহন, লন্ডন এক্সপ্রেস, ইউনিক সার্ভিস, এনা ট্রান্সপোর্ট প্রাইভেট লিমিটেড, শ্যামলী পরিবহন, হানিফ পরিবহনসহ বেশিরভাগ দূরপাল্লার বাস। বাস যোগাযোগ বন্ধ রাখায় দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা। এখন ট্রেন দুর্ঘটনার কারণে সারাদেশ থেকে বিচ্ছিন্ন হয় পড়লো সিলেট।