দাদির পাশ থেকে কিশোরীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ!

মৌলভীবাজারের কাগাবলা ইউনিয়নে অথানগিরি গ্রামে এক মাদরাসা ছাত্রী (১২) গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। এই ঘটনায় কিশোরীর মা বাদী হয়ে দু’জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন।

আসামিরা হলেন- একই এলাকার ওয়াতির আলীর ছেলে জাহিদ মিয়া (৩০) ও মৃত রব্বান মিয়ার ছেলে রাব্বি মিয়া (২৮)।
ওই কিশোরীর মা বলেন, গত শনিবার মেয়েকে দাদির কাছে রেখে আত্মীয়ের বাড়িতে রোগী দেখতে যান তিনি। ওইদিন গভীর রাতে দাদির পাশে ঘুমিয়েছিল ওই কিশোরী। এ সময় জাহিদ মিয়া ও রাব্বি মিয়া টিনের বেড়া কেটে ঘরে ঢুকে। পরে তারা দাদি ও তার নাতনীকে বেঁধে রাখে। এরপর ঘর থেকে বের করে উঠানে নিয়ে ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করেন তারা। একপর্যায়ে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।

বর্তমানে ওই কিশোরী মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ইমরান হোসেন আজ শুক্রবার বলেন, মেয়েটি ঘটনার দিন থেকে এখনো চিকিৎসা নিচ্ছে। আমরা বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করছি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আসামি রাব্বীর চাচা খুরশেদ মিয়া ও স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছেন। এছাড়া ওই কিশোরীর পরিবারকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য হুমকিও দেয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে মৌলভীবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন বলেন, ‘খুবই খারাপ একটি ঘটনা ঘটেছে, আমরা আসামিকে ধরতে সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’

বিডি প্রতিদিন