স্বার্থ ও আদর্শের রাজনীতি যখন একাকার

ঈদের আনন্দে আনন্দিত হয়ে ঈদের নামাজ আদায় করতে মসজিদে হাজির হলাম, চারপাশে লোকে লোকারণ্য। কোলাকুলি করার সময় রাজনৈতিক বিচার করা যায় না, চোখের সামনে চাঁদাবাজ, সন্ত্রাস, আগুন সন্ত্রাসী, জনবিচ্ছিন্ন কিছু মানুষ দাঁড়িয়ে রয়েছে। আদর্শের রাজনীতি থেকে এদের ফিরিয়ে দিতে পারলাম না। অপরাধীর মতোই কাঁচুমাচু করে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করলো। আমার কাছে মনে হয়েছে ওরা অনুতপ্ত এবং বুঝতে পেরেছে আগুনে পুড়িয়ে গণতন্ত্র ও শান্তি স্থাপন করা যায় না, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায়ও যাওয়া যায় না। আর একথা বিএনপি ও জামায়াতের চেয়ে ভালো আর কে বুঝতে পারবে। হঠাৎ আমার সামনে এসে চিৎকার করে উঠলো ২৫-২৬ বছরের এক যুবক, নাম উল্লেখ করলাম না, সঙ্গে আরো ৪-৫ জন। বললো, চাচা আমাদের একটা সুযোগ দেন, আমরা কি করতে পারি দেখেন, আমরা রাজনৈতিক সচেতন ছিলাম না, ক্ষমতার ডামাডোল আমাদের অন্ধ করে দিয়েছিলো, অবৈধ টাকা আর অস্ত্র অল্প বয়সে আমাদের বিপথগামী করেছে। মানুষের ভালো-মন্দ, দেশের উন্নয়ন, আদর্শের রাজনীতিতে ঐক্যের শক্তি ও শান্তি তা বুঝতে চাই এবং দেশের জন্য কিছু করতে চাই। বাঁচার জন্য একটা প্লাটফর্ম চাই, খারাপ পথ থেকে বর হওয়ার একটি সুযোগ দিন চাচা।

একমনে তাদের কথাগুলো শুনছিলাম আর ভাবছিলাম, কতো মানুষ আওয়ামী লীগে যোগদান করেছে, সব মানুষ আওয়ামী লীগ ছেড়ে চলে যায়নি, শুধু ভালো মানুষ দিয়ে রাজনীতি হয়ও না। জাতির জনককে হারিয়ে দলের পোস্টার লাগানোর মতো মানুষ পেতাম না, ধীরে ধীরে মানুষ তাদের ভুল থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে আলোর পথে, আদর্শের প্লাটফর্মে ফিরে এসেছে। কিছু লোভ ও স্বার্থে আদর্শের রাজনীতি মিলেমিশে একাকার, আজ আপনি বাছাই করতে পারবেন না। চাচা, আবার চমকিত হলাম, চাচা আমরা বুঝতে পারতেছি তারেক জিয়া লন্ডনে, নেতারা মাঠে নেই, আমাগো দিয়া আগুন দেয়, মানুষের আহাজারি আর ভালো লাগে না। চাচা আগের কথা ছাড়েন, এখন তো কিছু বুঝি। পরের পোলা দিয়া রাজনীতি, পরের ঘরে আগুন দিয়া রাজনীতি কি হয়? ৬ মাস জেলে ছিলাম, কোনো নেতা-উকিল খবর নেয় নাই। চাচা একটা সুযোগ দিয়া দেখেন আপনাকে ঠকামু না, আমাদের জন্য শরম পাইবেন না। ছেলেগুলোর কথা শুনে বিশ্বাস করতে ইচ্ছে করছে, প্রতিহিংসার রাজনীতি অনেক ভয়ংকর হয়। কাদের সিদ্দিকী, মান্না, রবদের তো চোখের সামনে দেখেছি, আওয়ামী লীগ ঘরানার থেকে আজ তারা দিশেহারা, কখন কি বলেন তারা নিজেরাও বুঝেন কিনা আমার সন্দেহ আছে।

ছেলেদের দিকে একবার তাকিয়ে ভাবছি আওয়ামী লীগ প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না, এই ছেলেদের চরিত্র গঠন অসাধ্য হতে পারে, এরা বিএনপি ত্যাগ করলে বিএনপির চরিত্র জনগণ দেখবে কাদের মাধ্যমে। এদেশের সব মানুষ আওয়ামী লীগ করলে বিরোধী দল পাবো কোথায়? রাজনীতির স্থায়িত্ব পেতে হলে নিজেকে উদার করে দিতে হয়। ছেলেদের আর কি বলবো, অফিসে আসতে বলে আপাতত ইতি টানলাম। স্বার্থের রাজনীতি আদর্শের সঙ্গে মিশালে কি হবে একটু ভাবার সময় নিলাম। লেখক : মহাসচিব, বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতি