মমতার সাফ কথা, পশ্চিমবঙ্গে থাকতে হলে বাংলায় কথা বলতে হবে

শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উত্তর ২৪ পরগনার কাঁচরাপাড়ায় এক সভায় এ কথা বলেন। তিনি বলেন, বিজেপি ক্ষমতা দখল করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। তাই বাঙালি ও সংখ্যালঘুদের টার্গেট করে গুজরাট মডেলের অনুসরণ করতে চাইছে। কিন্তু বিজেপির এই লক্ষ্য পূরণ হতে দেবেন না, এমনই ধনুকভাঙ্গা পণ করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, পশ্চিমবঙ্গকে তিনি গুজরাট বানাতে দেবেন না। এনডিটিভি বাংলা

মমতা বলেন, ‘বাঙালিকে বাংলায় ঘরছাড়া হতে দেব না। আমরা বাংলা ভাষাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। যখন আমরা দিল্লি যাই, আমরা হিন্দিতে কথা বলি। যখন পাঞ্জাবে যাই, পাঞ্জাবিতে কথা বলি। যখন আমি তামিলনাড়ু যাই, তামিল না জানলেও অল্প কিছু জানি। সুতরাং একই ভাবে যখন আপনি বাংলায় আসবেন, আপনাকে বাংলায় কথা বলতে হবে। আমরা মেনে নিতে পারি না, বাইরে থেকে লোক আসবে আর বাঙালির মারধর করবে।’

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘নৈহাটি, কাঁকিনাড়া, ব্যারাকপুরে বাঙালিদের বাড়িতে লুট হচ্ছে। আমরা এটা সহ্য করবো না। আমাদের দলীয় সমর্থকরা কিন্তু অবাঙালিদের বাড়িতে লুটতরাজ চালাচ্ছে না। আমরা এই ধরনের হিংসার বিরুদ্ধে।’

বিজেপির প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে মমতা বন্দোপাধ্যায় বলেন, ‘ইভিএমে কারচুপি করে কয়েকটা আসনে জিতেছে মানে এই নয় যে, রাজ্যের বাঙালি আর সংখ্যালঘুদের মারবে। আমরা এসব সহ্য করবো না। পুলিশ এই হুলিগানদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে।’

উত্তর ভারতের বিশেষ করে বিহারের বাসিন্দাদের মহারাষ্ট্রে মারধর করা হয়েছে কয়েক বছর আগেও। এ কথা উল্লেখ করে মমতা বন্দোপাধ্যায় বলেন, ‘বাংলার মানুষ সব ধর্ম, সম্প্রদায় ও জাতির সহাবস্থানে বিশ্বাস করে। আমরা বাংলায় বসবাসকারী অবাঙালিদের বিরোধী নই। কিন্তু বিজেপি বাংলায় বাঙালি-অবাঙালি ভেদাভেদ করতে চাইছে। আমি বলে দিচ্ছি, আমাদের ধৈর্যের পরীক্ষা নেবেন না।’

সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব