সন্ত্রাস ও আলোচনা একসঙ্গে চলতে পারে না, পাকিস্তানকে ভারতের বার্তা

কাশ্মীর সমস্যাসহ যাবতীয় দ্বিপাক্ষিক সমস্যার সমাধান করতে ভারতের সঙ্গে বরাবরই আলোচনায় বসতে চান পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। কিন্তু প্রথম থেকেই ভারত সরকার এক নীতিতেই অনড়। তা হল, সন্ত্রাস ও আলোচনা একসঙ্গে চলতে পারে না। তাই পাকিস্তান সীমান্ত পেরিয়ে জঙ্গি মদত, নাশকতা, সন্ত্রাস যতক্ষণ না বন্ধ হচ্ছে ততক্ষণ ভারত আলোচনায় বসবে না। দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরও মোদি সরকার এই নীতি বজায় রাখলেন। বৃহস্পতিবার ভারতের সরকারি ঘোষণায় এরকম আভাস মিলেছে। সংবাদ প্রতিদিন

তবে মোদি সরকারের ঘোষণায় একবারও বলা হয়নি যে, আমরা পাকিস্তানের সঙ্গে আলোচনায় বসব না। এতে ভুল বার্তা যেত। তাই ভারতের বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র রবীশ কুমার এদিন সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ১৩ থেকে ১৪ জুন কাজাখস্তানের রাজধানী বিসকেকে ‘সাংহাই-ফাইভ’ গোষ্ঠীর শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। সেখানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের মুখোমুখি এবং দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের কোনও কর্মসূচি নেই। দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে বৈঠকের সম্ভাবনা থাকলে তা আগেই নির্দিষ্টভাবে ঘোষণা করা হত।সম্পাদনা: কায়কোবাদ মিলন