চীনা প্রেসিডেন্ট বললেন, পুতিন আমার বেস্ট ফ্রেন্ড

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে সেরা বন্ধু হিসেবে স্বীকৃতি দিলেন চীনের প্রেসিডেন্ট ঝি লিংপিং। তিনদিনের সফরে মস্কো গেছেন লিংপিং, বাণিজ্য ও সম্পর্ক জোরদার করা তার প্রধান লক্ষ্য। দুই নেতা একটি একটি বাণিজ্য-চুক্তিতে সই করেছেন। মস্কো চিড়িয়াখানার জন্য দুটি পাণ্ডা দিয়েছে চীন, পুতিনকে সাথে নিয়ে দুই পাণ্ডার নবজীবন উদ্বোধন করেন লিংপিং। বিবিসি

চীনের প্রেসিডেন্ট বুধবার মস্কো পৌঁছেছেন। এরপর সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের সাথে ব্যক্তিগত বন্ধুত্বও গভীর। গত ৬ বছরে তার সাথে আমার অন্তত ৩০ বার দেখা হয়েছে। আমার সফর করা দেশগুলোর মধ্যে রাশিয়ায় গেছি সবচেয়ে বেশিবার। পুতিন আমার সবচেয়ে সেরা বন্ধু ও সহকর্মী।’

ঝি লিংপিংকে তার মনোভাবের জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে পুতিন বলেন, চীন ও রাশিয়ার সম্পর্ক অভূতপূর্ব পর্যায়ে উন্নীত হয়েছে। এই সম্পর্ক গ্লোবাল পার্টনারশিপ ও কৌশলগত সহায়তার।

মস্কো ও চীনের ক্রমবর্ধমান সম্পর্ক নিয়ে পক্ষ-বিপক্ষ দুই শিবিরেই আগ্রহ ব্যাপক। ইউরোপ এবং বিশেষ করে আমেরিকার বৈরি আচরণের পরিপ্রেক্ষিতে সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের দুই দেশ ক্রমশ একের অপরের সাথে দূরত্ব কমাতে শুরু করে।
পাঁচ বছর আগে ইউক্রেনের সংঘাতময় পরিস্থিতিতে মদদ দেয়ার অভিযোগে রাশিয়ার ওপর অবরোধ আরোপ করে পশ্চিমা বিশ্ব। ২১০৫ সালে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট আসাদকে সহায়তা করার অভিযোগেও রাশিয়ার সমালোচনায় মুখর পশ্চিমারা। অন্যদিকে, ট্রাম্প ক্ষমতায় এসে চীনকে পেঠ দেখাতে শুরু করলে দেশদুটির মধ্যে সম্পর্ক নষ্ট হতে থাকে। যুক্তরাষ্ট্র চীনা কোম্পানি হুয়াওয়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় দু’দেশের বাণিজ্য-সম্পর্ক পরিণত হয়েছে বাণিজ্য যুদ্ধে। আমেরিকার সাথে এই তিক্ততার মধ্যেই রাশিয়ার সাথে নতুন করে বাণিজ্যবৃদ্ধির উদ্যোগ নিলো চীন। সাম্প্রতিক সময়ে চীন ও রাশিয়ার মধ্যে বাণিজ্য বেড়েছে। ২০১৮ সালে দুই দেশের মধ্যে রেকর্ড ১০৮ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য হয়েছে, যা আগের বছরের তুলনায় আগের ২৫ শতাংশ বেশি।
সূত্র:আমাদের সময়