হাজার কোটি টাকা লুট হয়ে যাচ্ছে: বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর

ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ। বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ। বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর। অধ্যাপনা করছেন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে। লিখছেন, গবেষণা করছেন অর্থনীতির নানা প্রসঙ্গ নিয়ে। বাংলাদেশের বর্তমান অর্থনীতি, উন্নয়ন, চ্যালেঞ্জ প্রসঙ্গ নিয়ে মুখোমুখি হন জাগো নিউজ’র। আলোচনায় গুরুত্ব পায় অর্থনীতির সঙ্গে রাজনীতি-গণতন্ত্রের সম্পর্কের বিষয়টিও। বাজেটকে অর্থ অপচয়ের বিশেষ আয়োজন বলে উল্লেখ করেন এই বিশেষজ্ঞ। দুই পর্বের সাক্ষাৎকারের আজ থাকছে শেষটি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন সায়েম সাবু

জাগো নিউজ : আগের পর্বে ব্যাংকিং খাত, শেয়ারবাজারের সংকটের কথা বলছিলেন। এসব তো নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠানের দায়?

সালেহউদ্দিন আহমেদ : নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠানগুলো ভেঙে পড়ছে। এটি একটি রাষ্ট্রের জন্য ভয়াবহ চিত্র। শেয়ারবাজারে ধস হয়েই যাচ্ছে। ঠেকানোর কোনো উপায় নেই। অথচ বাংলাদেশ ব্যাংক এটি তদারকি করার কথা। এ রকম জনসম্পৃক্ত প্রতিটি সেক্টর এখন মনিটরিংয়ের বাইরে। যে যার মতো কাজ করছে। কোনো সমন্বয় আছে বলে আর মনে হয় না। প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে ক্ষমতা আছে, স্বকীয়তা আছে। অথচ কেউ তার জায়গা থেকে সঠিক ভূমিকা রাখতে পারছে না।

জাগো নিউজ : শেয়ারবাজার নিয়ে ধসের কথা বলছিলেন। এখানকার পরিস্থিতি নিয়ে কী বলবেন? সালেহউদ্দিন আহমেদ : শেয়ারবাজার নিয়ে ’৯০-এর দশকে যে কেলেঙ্কারি ঘটেছিল সেখান থেকে আমাদের শিক্ষা নেয়ার কথা ছিল। রাষ্ট্র, সরকার শিক্ষা নেয়নি। শিক্ষা নেয়া হয়নি বলেই ২০১০ সালের কেলেঙ্কারি। যে কেলেঙ্কারির ধারাবাহিকতা এখনও বিরাজমান। কারা, কীভাবে এই কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত, তা সরকার এবং বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠানের কাছে দৃশ্যমান। যারা শেয়ারবাজারের সঙ্গে সম্পৃক্ত তারাও জানেন। অথচ কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।

জাগো নিউজ : ধসের এই পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে শেয়ারবাজারের আসলে কী পরিণতি ঘটবে? সালেহউদ্দিন আহমেদ : বাংলাদেশ ব্যাংকের জায়গায় শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রণ করছে বড় বড় বিনিয়োগকারীরা। এ কারণে শেয়ারবাজারকে প্রভাবিত করার ক্ষমতা মূলত তারাই রাখছে। দাম কখন বাড়বে, তা বড় প্রতিষ্ঠানগুলোই জানে। তখন তারা বিক্রি করে। আবার কখন কমবে, তাও তারাই জানে। তখন তারাই কিনে নেয়। আর সাধারণ মানুষ বোকার মতো তাদের খপ্পরে পড়ে যায়। সাধারণ মানুষকে এ ব্যাপারে ভালো ধারণা দেয়ার কোনো প্রতিষ্ঠান নেই।

স্টক মার্কেট নিয়ে গবেষণা নেই। মানুষ পাগলের মতো এসে বিনিয়োগ করছে। আর নিঃস্ব হয়ে ফিরে যাচ্ছে। আত্মহত্যার ঘটনাও ঘটছে। সাধারণ মানুষকে তথ্য দেয়া হয় না। ব্যবসায়ীরা নীতিনির্ধারক হচ্ছে বলে সাধারণ মানুষের স্বার্থরক্ষা হচ্ছে না। পোশাক কারখানার মালিকরা এখন সাংসদ। সংসদ ব্যবসায়ীর সংখ্যাই বেশি। এই সাংসদরা তো নিজেদের স্বার্থের বাইরে কোনো কাজ করবে না এবং এটাই স্বাভাবিক। সংসদ এখন ব্যবসায়ীদের দখলে, সাধারণ মানুষ বঞ্চিত হবেই।

জাগো নিউজ : ব্যবসায়ীদের এই আধিক্যের জন্য কোন বিষয়কে সামনে আনবেন? সালেহউদ্দিন আহমেদ : গণতন্ত্র সংকুচিত হলে পুঁজির অসম বিকাশ ঘটে। এখন তাই ঘটছে। আর এ কারণেই সরকারের নিয়ন্ত্রণে ব্যবসায়ীরা। কারণ পুঁজিই এখন ক্ষমতার উৎস। জনগণ নয়। এতে করে জনগণের স্বার্থ আর সেই অর্থে গুরুত্ব পায় না। মানুষ দুই হাতে কাজ চায়, অথচ রাজনীতি সে হাত বেঁধে ফেলছে.

জবাবদিহিতা নেই, সুশাসন নেই, গণতন্ত্র নেই। এই পরিস্থিতি সাধারণ মানুষের জন্য কোনো স্বস্তির বার্তা দিতে পারে না। সাধারণ মানুষের ভোটাধিকার না থাকলে অথবা ভোটাধিকার যদি ক্ষমতায় বা অর্থের কাছে অবরুদ্ধ হয়ে যায় তখন জনপ্রতিনিধি নামে মাত্র। তারা জনগণের না।

মানুষের কাছে জনপ্রতিনিধিদের কোনো জবাবদিহি করতে হচ্ছে না বলে আমলারাও আর কোনো কাজে জবাবদিহি করতে অভ্যস্ত হচ্ছে না। ব্যাংকারদের জবাবদিহিতা নেই। হাজার হাজার কোটি টাকা লুট হয়ে যাচ্ছে। দায়িত্বশীলদের মধ্যে কোনো অনুশোচনা নেই। বড় বড় দুর্নীতি করে অপরাধীরা পার পেয়ে যাচ্ছেন। তদন্ত নেই, বিচার নেই, শাস্তি নেই। এতে করে অন্য দুর্নীতিবাজরা আরও উৎসাহিত হচ্ছে। অন্যদিকে ঝুঁকি নিয়ে একজন তরুণ উদ্যোক্তা নিরুৎসাহিত হচ্ছেন বিনিয়োগ করতে।

সমাজে যথেষ্ট দক্ষ, উদ্যোগী মানুষ আছে। তাদের জায়গা দেয়ার পরিবর্তে বাধা দেয়া হচ্ছে। সরকারের পলিসিকেই আমি এর জন্য দায়ী করব। উন্নয়ন আগে নাকি গণতন্ত্র আগে এই বিতর্ক সাধারণ মানুষকে বঞ্চিত করছে। গণতন্ত্র না থাকলে উন্নয়নের কোনো মানে হয় না। আমি বলি গণতন্ত্র এবং উন্নয়ন পাশাপাশি থাকতে হবে। এক পায়ে বেশি দূর এগুনো যায় না।